দেশের পশ্চিমাঞ্চল থেকে পরীক্ষামূলকভাবে একটি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছে উত্তর কোরিয়া।

মঙ্গলবার উৎক্ষেপণ করা এই ক্ষেপণাস্ত্রটি দেশটির পূর্ব উপকূলের সাগরে গিয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

চলতি সপ্তাহে জার্মানিতে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনের আগে ক্ষেপণাস্ত্রটি ছোঁড়া হল।

জাপান সরকার জানিয়েছে, উৎক্ষেপণের প্রায় ৪০ মিনিট পর ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের জলসীমায় গিয়ে পড়েছে। এই ঘটনা উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে জাতিসংঘের আরোপিত নিষেধাজ্ঞার পরিষ্কার লঙ্ঘন এবং জাপান জোরালোভাবে এর প্রতিবাদ করেছে বলে জানিয়েছেন তারা। মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ৯ টা ৪০ মিনিট (বাংলাদেশ সময় সকাল ৬ টা ৪০ মি.) উত্তর কোরিয়ার ছোঁড়া ক্ষেপণাস্ত্রটি জাপানের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে আঘাত করে বলে জাপানের মন্ত্রী পরিষদ সচিব ইয়াশিদা সুগা জানিয়েছেন।

টোকিওতে এস সংবাদ সম্মেলনে সুগা বলেন, “উত্তর কোরিয়া জাপানের অর্থনৈতিক অঞ্চলে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। যা এ যাবতকালের চেয়ে সবচেয়ে বেশি দ্রুতগামী। ক্ষেপণাস্ত্রটি মাত্র চল্লিশ মিনিটে ৯৩০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে আমাদের অর্থনৈতিক জোনে পড়ে। প্রতিরক্ষা বাহিনী ক্ষেপণাস্ত্রটি পরীক্ষা করে দেখছে।”

তিনি আরো বলেন, “এতো দ্রুত ক্ষেপণাস্ত্রটি ছোঁড়া হয়েছে যে ক্ষেপণাস্ত্র বিরোধী ব্যবস্থা দিয়ে তা থামানো কঠিন হয়ে গেছে। নিঃসন্দেহে এটি আমাদের জন্য বড় ধরনের হুমকি।”
দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চিফ অব স্টাফের দপ্তরও ক্ষেপণাস্ত্রটি ৯৩০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করেছে জানিয়ে বলেছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি কতোটা উপরে উঠেছিল তা বিশ্লেষণ করে দেখা হচ্ছে।

ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের প্রায় ঘন্টা দুয়েক পর জাপানি প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এব সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “জি-২০ সম্মেলনে বিশ্ব নেতারা উপস্থিত থাকবেন। উত্তর কোরিয়ার ইস্যুতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে একতাবদ্ধ হওয়ার জন্য জোরালো আহ্বান রাখবো আমি।”

বিশ্ব সম্প্রদায় বারবার সতর্ক করা সত্বেও উত্তর কোরিয়া তা অগ্রাহ্য করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। উত্তর কোরিয়ার অস্ত্র কর্মসূচীর বন্ধ করতে আরো জোরালো ভূমিকা পালনের জন্য চীন ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্টকে বলবেন বলে জানান আবে।

ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণের সংবাদ আসার পর এক টুইটে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, “উত্তর কোরিয়া এইমাত্র আরেকটি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করলো। এই ব্যক্তি কি জীবনে এরচেয়ে ভাল কিছু আর করবে না?”

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের প্রসঙ্গে বলেন তিনি; তবে তাৎক্ষণিকভাবে হোয়াইট হাউস বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করেনি।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইন মে-তে ক্ষমতা গ্রহণের পর এ নিয়ে চতুর্থ ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করলো উত্তর কোরিয়া। এ বিষয়ে মুন বলেছেন, পিয়ংইয়ংয়ের পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি নিয়ন্ত্রণে আনতে সংলাপের পাশাপাশি চাপও প্রয়োগ করতে হবে।

সপ্তাহের শেষ দিকে জার্মানিতে বিশ্বের শক্তিশালী অর্থনীতির দেশগুলোর সম্মেলন (জি২০) অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এশিয়ার সবচেয়ে শক্তিশালী অর্থনীতির দুই দেশ জাপান ও চীন ওই সম্মেলনে অংশ নেবে।

এরই অংশ হিসেবে গত সোমবার চীন ও জাপানের সরকার প্রধানদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ফোনালাপ করেন। সেখানে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে আলোচনা হয় বলে সংবাদ মাধ্যমে খবর আসে, আর এর ২৪ ঘণ্টার মাথায় উ. কোরিয়া তার জবাব হিসেবে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের ঘটনা ঘটালো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য