দিনাজপুর সংবাদাতাঃ ফসল উৎপাদনে বিদেশী বীজ নয়, উন্নতমানের দেশী বীজের দাবিতে কৃষকরা দিনাজপুরে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে।

রোববার সকালে জেলার চিরিরবন্দর উপজেলার বেকীপুল নামক স্থানে কৃষকদের গড়ে তোলা দিঘন সিআইজি (ফসল) সমবায় সমিতি’র আয়োজনে ও গঞঈচ২ ইধহমষধফবংয -এর অর্থায়নে এই মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। পরে উন্নতজাতের দেশী বীজের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

প্রায় ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন কৃষক সংগঠনটির সভাপতি মিজানুর রহমান, সাধারন সম্পাদক মমিনুল ইসলাম, কৃষক আজিজার রহমান, স্বপন কুমার শীল, পল্লব কুমার দাস, ডা. জয়ন্ত কুমমার শর্ম্মা, জিকরুল ইসলাম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, দেশীয় বীজের মাধ্যমে উৎপাদিত ফসলের স্বাদ ও গন্ধে যেমন অতুলনীয় তেমনি পুষ্টিগুণও প্রচুর। কিন্তু নানাবিধ প্রতিকুলতায় এসব দেশীয় জাতের ফসল তাদের ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। এই সুযোগটি গ্রহণ করেছে বিদেশী কোম্পানীগুলো। তারা কৃত্রিম উপায়ে তৈরী করা বিদেশী বীজ হাইব্রীড নাম দিয়ে সরবরাহ করছে নানাবিধ সুবিধার লোভ দেখিয়ে। এসব বীজের দাম যেমন বেশি তেমনিভাবে কৃষক দ্বারা এসব ফসলের বীজ উৎপাদন ও সংরক্ষণ সম্ভব না।

বক্তারা বলেন, বিদেশী কোম্পানীগুলো কৃত্রিমভাবে উৎপাদন করছে হাইব্রীজ নামক চিকন ধানবীজ। এসব বীজ দ্বারা উৎপাদিত ফসল নি¤œমানের ও সুগন্ধিও নয়। কৃষকরা নানাবিধ সুবিধা মনে করে এসব বীজ ব্যবহার করলেও ফল তেমন পাচ্ছেন না। অধিকন্তু কাটারীভোগ, বাদশাভোগ, নানীয়াশাইল, কালোজিরাসহ সব ধরনের সুগন্ধি জাতের ধানগুলোর ঐতিহ্য হারিয়ে যাচ্ছে।

তাই সর্বস্তরের মানুষকে ঐতিহ্যবাহী দেশীয় ধানের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে প্রতি ইউনিয়নে বীজ ব্যাংক তৈরীর আহ্বান জানানো হয় এই মানববন্ধনে। যাতে করে কৃষকরা সেখান থেকে ন্যার্য্য মূল্যে বীজ পায় এবং সেখান থেকে বীজ সংরক্ষণের জন্য মারিয়া মডেল পদ্ধতিতে প্রশিক্ষণ প্রদান করা যায়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য