সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুর একটি ব্যস্ত হোটেল ও সংলগ্ন একটি রেস্তোরাঁয় জঙ্গিদের আত্মঘাতী গাড়িবোমা ও বন্দুক হামলায় অন্তত ১৯ জন নিহত হয়েছে।

পুলিশ কর্মকর্তা আব্দি বশির বৃহস্পতিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

বুধবার রাতে এক আত্মঘাতী হামলাকারী দক্ষিণ মোগাদিসুর পশ হোটেলের প্রবেশ পথে গাড়িবোমা বিস্ফোরণ ঘটায়। এর পরপরই একদল বন্দুকধারী জঙ্গি হোটেল সংলগ্ন পিজা হাউজ রেস্তোরাঁয় হামলা চালিয়ে ২০ জনকে জিম্মি করে।

মোগাদিশুর একমাত্র ডিস্কোথেকটি পশ হোটেলে অবস্থিত।

পিজা হাউজে কয়েক ঘন্টা জিম্মিদের আটকে রাখার পর মধ্যরাতে সেখানে অভিযান চালায় সোমালি নিরাপত্তা বাহিনী। অভিযানে পাঁচ বন্দুকধারী নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন বশির।

“আমরা হোটেলটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছি, কিন্তু আত্মঘাতী বোমার আঘাতে হোটেলটির অধিকাংশই ধ্বংস হয়ে গেছে,” ফোনে বলেছেন তিনি।

এর আগে পুলিশের মেজর ইব্রাহিম হুসেইন পিজা হাউজটির সামনে একটি গাড়িবোমা পার্ক করা আছে এবং ভিতরে স্নাইপাররা অবস্থান নিয়ে থাকায় অভিযান চালানো ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থলে বেশ কয়েকটি লাশ পড়েছিল, অ্যাম্বুলেন্স এসে লাশগুলো সরিয়ে নেয়।

পুলিশ জানিয়েছিল, পশ হোটেলে চালানো আত্মঘাতী হামলায় যারা নিহত হয়েছে তাদের অধিকাংশই নারী এবং তারা হোটেলটির কর্মচারী।

জঙ্গিগোষ্ঠী আল শাবাব হামলায় দায় স্বীকার করেছে।

আল শাবাবের সামরিক মুখপাত্র আব্দিয়াসিস আবু মুসাব রয়টার্সকে বলেছেন, “গাড়িবোমা নিয়ে পশ হোটেলে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে এক মুজাহিদ (যোদ্ধা) শহীদ হয়েছেন। ওই হোটেলটি একটি নৈশক্লাব। অভিযান অব্যাহত আছে।”

২০১১ সালে আফ্রিকান ইউনিয়নের সেনারা আল শাবাব বিদ্রোহীদের মোগাদিসু থেকে হটিয়ে দেয়, কিন্তু এখনও দেশটির অধিকাংশ এলাকা বিদ্রোহী জঙ্গিগোষ্ঠীটির নিয়ন্ত্রণে আছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য