কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলায় এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শ্রমিকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর ওই ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করলেও তা আমলে নেয়নি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়ন পরিষদের ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের কর্মসৃজন কর্মসূচী প্রকল্পের ১ম পর্যায়ের ৪০ দিনের কর্মসূচীতে ওই ইউনিয়নের ৩৯৯জন শ্রমিক যারা ৪০ কার্য দিবসের কাজ সম্পন্ন করেন। গত ৭ ফেব্র“য়ারি থেকে প্রকল্পের ১ম ৪০ কর্ম দিবসের কাজ শুরু হওয়ায় সে মোতাবেক ১৫ এপ্রিল উক্ত কাজ সম্পন্ন করা হয়। গত ২৩ এপ্রিল প্রকল্প চেয়ারম্যান আছমা খাতুন শ্রমিকের মজুরী দেয়ার জন্য গুনাইগাছ ইউনিয়ন পরিষদে ডাকেন এবং তার কথামত শ্রমিকরা সেখানে গেলে তিনি তাদের কাছ থেকে সমুদয় চেক বই নিয়ে প্রত্যেককে একটি করে চেকের পাতা দিয়ে ২৪ এপ্রিল পরিষদে আসতে বলেন।

সেদিন অন্যান্য শ্রমিকদের বিল প্রদান করলেও ৪নং ওয়ার্ডের ৮জন শ্রমিকের বিল প্রদান না করে তাদের পাওনা মজুরী চেয়ারম্যানের কাছে গচ্ছিত আছে প্রকল্প চেয়ারম্যান আছমা খাতুন জানান। মুকুল, মর্জিনা, মজিদ, আমেনা, আফসারুল, আব্দুল মমিন, রুহুল সহ অভিযোগকারী শ্রমিকরা জানান, তারা অন্যান্য শ্রমিকের মতো নিয়মিত ভাবে ১ম পর্যায়ের কাজ করলেও ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ তাদের কাজের টাকা না দিয়ে উত্তোলিত ৮জনের ৫৬ হাজার টাকা প্রকল্প চেয়ারম্যান আছমা খাতুন, সদস্য সচিব মোজাহারুল ইসলাম ও চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ যোগসাজোসে আত্মসাৎ করেন।

পরবর্তীতে পাওনা টাকা চাইতে গেলে তিনি বিভিন্ন টালবাহনা শুরু করেন। তারা আরও বলেন, প্রকল্প তালিকা প্রণয়নে চেয়ারম্যান অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতা করেছেন এবং উক্ত প্রকল্পে তার কয়েকজন নিজস্ব স্বচ্ছল ব্যক্তি তালিকায় আছেন। যারা কাজ না করেও বেতন উত্তোলন করেছেন।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, দ্বিতীয় পর্যায়ের তালিকায় তাদের নাম না থাকায় মজুরী প্রদান করা সম্ভব হয়নি। এদিকে ৪নং ওয়ার্ডের ৪১জন শ্রমিক গত ১২ জুন মজুরী বঞ্চিত ৮জন শ্রমিকের বিল না দেয়ায় জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন।

প্রকল্পের সদস্য সচিব, মোজাহারুল ইসলাম জানান, শ্রমিকের টাকা প্রদানে চেয়ারম্যানই সব জানেন, আমার কিছু জানা নেই। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য