সৈয়দপুরে অত্যন্ত নোংরা, অপরিচ্ছন্ন ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার করে লাচ্ছা সেমাই ও রুটি, বিস্কুটসহ অন্যান্য বেকারী সামগ্রী তৈরি এবং দোকানের মালামাল রাস্তার ওপর রেখে দখল করে রাখার অভিযোগে ১৪টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মালিকের কাছ থেকে সাড়ে ৬৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। সৈয়দপুর শহরের ব্যস্ততম শহীদ সামসুল হক সড়কসহ কয়েকটি জায়গায় এক অভিযান চালিয়ে ওই পরিমাণ টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমান আদালত। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সৈয়দপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম।

যে সব প্রতিষ্ঠানের জরিমানা করা হয় সে গুলো হচ্ছে, আলিফ লাচ্ছা সেমাই কারখানার ১০ হাজার টাকা, আনমল বেকারীর ৩০ হাজার টাকা, ডায়মন্ড কনফেকশনারীর ৫ হাজার টাকা, মুন্না ফল দোকানের ১ হাজার টাকা, মামুন গিফ্ট কর্ণারের ২ হাজার টাকা, তৌহিদ ক্লথ স্টোরের ১ হাজার টাকা, প্রদীপ গার্মেন্টসের ৫ হাজার টাকা, বাবু ফ্যাশন ও পাঞ্জাবী হাউজের ৫ শ’ টাকা, সাত রং গার্মেন্টসের ৩ হাজার টাকা, তাহের গার্মেন্টসের ১০ হাজার টাকা, সাহিদ গার্মেন্টের ১ হাজার টাকা, সগির ফল দোকানের ৫ হাজার টাকা, ওয়াসিম লবন দোকানের ১ হাজার টাকা ও গুলজার ক্লোথ স্টোরের ১ হাজার টাকা।

অভিযান সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, লাচ্ছা সেমাই কারখানা, কনফেকশনারীগুলো অত্যন্ত নোংরা, অপরিচ্ছন্ন ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহার ঘটনাটি পরিলক্ষিত হয়। এছাড়াও শহরের শহীদ ডা. সামসুল হক সড়ক অবৈধভাবে দখলে নিয়ে মালামাল রেখে বিক্রির ঘটনাটি সরেজমিনে দেখতে পাওয়া যায়। এ সব কারণে ভ্রাম্যমান আদালত উল্লিখিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর মালিকের পৃথক পৃথক অংকের টাকা জরিমানা করে তা আদায় করেন। অভিযানে সৈয়দপুর পৌরসভার কাউন্সিলর এরশাদ হোসেন পাপ্পু, উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর মো. অহিদুল হক, পৌর স্যানিটারী ইন্সপেক্টর আলতাফ হোসেন সরকার, সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. জিয়াউল হক জিয়াসহ তাঁর সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যরা সহযোগীতা করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য