ভারতের মধ্যপ্রদেশের মান্দসৌরে ‍ঋণ মওকুফ এবং পণ্যের মূল্য বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলনরত কৃষকদের উপর গুলিতে পাঁচ জন নিহত হয়েছে।

যদিও গৃহমন্ত্রী ভুপেন্দ্র সিংয়ের দাবি পুলিশ গুলি চালায়নি। এনডিটিভিকে তিনি বলেন, “সেখানে পুলিশ গুলি চালায়নি। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে।” ‘সমাজবিরোধীরা’ কৃষকদের উপর গুলি চালিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অন্যদিকে উজ্জাইন বিভাগীয় কমিশনার ওম ঝা সংবাদ সংস্থা আইএএনএসকে বলেন, “মঙ্গলবার দুপুর ২টার দিকে বিক্ষুব্ধ কৃষকদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ গুলি চালায়। ঘটনাস্থলেই দুই কৃষকের মৃত্যু হয়, কয়েকজন আহত হন।”

বিক্ষোভের সময় কৃষকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ করে বলে জানা গেছে। তারা কয়েকবার রেল রাস্তা উপড়ে ফেলারও চেষ্টা করেছে।

এ ঘটনার পর দেশটির প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এক টুইটে বলেন, “এই সরকার কৃষকদের সঙ্গে যুদ্ধ করছে।”

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান বিরোধীদলগুলোর প্রতি সহিংসতার উসকানি দেওয়ার অভিযোগ তুলে বলেন, তার সরকার কৃষকদের পাশে আছে।

মঙ্গলবার রাতে মান্দসৌর ঘটনায় হতাহতদের জন্য তিনি ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেন। তিনি নিহতদের জন্য ১০ লাখ থেকে ১ কোটি রুপি এবং সরকারি চাকরি; আহতদের জন্য পাঁচ লাখ রুপি দেওয়ার কথা জানান।

কৃষকদের ধর্মঘট শুরু হওয়ার পর ইন্দোর, উজ্জাইন, দেওয়াজসহ রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলে ইন্টারনেট বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানায় এনডিটিভি।

নিজেদের উৎপাদিত পণ্যের উচ্চ মূল্যের পাশপাশি ঋণ মওকুফের দাবিতে ১ জুন থেকে ১০ দিনের ধর্মঘট শুরু করেছে মধ্যপ্রদেশের কৃষকরা।

কোথাও কোথাও কৃষকদের এই বিক্ষোভ নৃশংসতায় রূপ নিচ্ছে। আন্দোলনরত কৃষকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়ছে, যানবাহনে আগুন দিচ্ছে। দোকানপাঠ ভাংচুর ও লুটপাটের খবরও পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার থেকে কৃষকরা পণ্য সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়ায় মুম্বাই ও পুনের মত শহরগুলোতে সবজি ও দুধের দাম একলাফে প্রায় ৫০ শতাংশ বেড়ে গেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য