আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট প্রতিনিধি: সামাজিকভাবে আন্দোলন গড়ে তুলে লালমনিরহাট জেলাকে ভিক্ষুক মুক্ত করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৪ হাজার ভিক্ষুককে পুনর্বাসনের উদ্দ্যোগ নেয়া হয়েছে।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবুল ফয়েজ মো. আলাউদ্দিন খাঁন বলেন, এসডিজি অর্জনের লক্ষ্যে বাংলাদেশকে ভিক্ষুক মুক্ত করতে সরকারের গৃহীত কর্মসূচির আওতায় লালমনিরহাট জেলার ৫টি উপজেলা ও দুইটি পৌরসভার প্রত্যন্ত অঞ্চল ঘুরে ঘুরে ভিক্ষুকদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। লালমনিরহাটের ৪ হাজার ভিক্ষুককে পুনর্বাসনের কাজ শুরু করা হয়েছে।

মোট ৩ হাজার ৯৪৯ জন ভিক্ষুকের ডাটাবেজ তৈরি করেছে জেলা প্রশাসন। এর পরও যদি কেউ বাদ পড়ে যান তাকেও খুঁজে বের করে তালিকাভুক্ত করা হবে। এসব ভিক্ষুককে নিজ এলাকায় রেখে কর্মসংস্থানে আত্মনিয়োগ করে স্বাবলম্বী করা হবে। ক্ষুদ্র ব্যবসা, ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প, রিকশা ভ্যান শ্রমিকসহ নানান পেশায় অন্তভুক্ত করা হবে ভিক্ষুকদের।

এছাড়াও বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, ভিজিডিসহ সরকারের সকল সুবিধা প্রদান করা হবে ওইসব ভিক্ষুকদের। যেসকল ভিক্ষুকের বাসস্থান নেই তাদের জন্য খাসজমিতে আবাসন বা আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে বাসস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। যে করেই হোক লালমনিরহাটকে ভিক্ষুক মুক্ত করা হবে।পেশাদার ভিক্ষুকরা এসব সুযোগ সুবিধা নেয়ার পরও যাতে পুনরায় অন্য জেলায় গিয়ে ভিক্ষাবৃত্তিতে না জড়ায় সেজন্য নিয়মিত মনিটরিং করা হবে।

লালমনিরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতাহার হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মধ্যম আয়ের দেশ হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রীর সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নে লালমনিরহাট জেলা ভিক্ষুক মুক্ত হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য