দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর থেকেঃ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে রুপালী ব্যাংক লিঃ এর শিওরক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি প্রদানে টাকা কম দেয়ায় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী অভিভাবকরা টাকা বিতরণকারী এজেন্টের দোকান বন্ধ করে দিয়েছে।

জানা গেছে, গত ৩০ মে  মঙ্গলবার প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতায় উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিশু শ্রেনি হতে পঞ্চম শ্রেনি পর্যন্ত রুপালী ব্যাংকের শিওর ক্যাশ মোবাইল ব্যাংকিং এর কমিশন এজেন্ট চিরিরবন্দর রাণীরবন্দর সুইহারী বাজারের খাদিজা টেলিকমের সত্বাধিকারী আব্দুল্লাহ আল মামুনের কাছে শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা উপবৃত্তির টাকা উত্তোলন করতে গেলে প্রতি জনের বিপরীতে বরাদ্দকৃত ৩০০ টাকার পরিবর্তে ২৮০ টাকা ও ৬০০ টাকার পরিবর্তে ৫৮০ টাকা করে দিয়ে প্রদান করে।

টাকা কম প্রদানের ফলে বিকেলে অভিভাবকদের সাথে এজেন্ট মালিক আব্দুল্লাহর ব্যাপক ঝগড়া বিবাদের সৃষ্টি হয় এক পর্যায়ে উত্তেজিত শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা দোকান বন্ধ করে দেয়। শিক্ষার্থী অভিভাবক রবি, আরজিনা, মাজেদা, মরিয়ম জানান, ইতিপূর্বে ব্যাংক কর্তৃক হাতে হাতে টাকা প্রদানে কোন টাকা কম দেয়া হয়নি।

বর্তমানে মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে টাকা প্রদান করায় টাকা কর্তন কোন যুক্তি আসেনা। এ ব্যবস্থা চালু হওয়ায় এজেন্টরা উপবৃত্তির টাকা প্রদানকে কেন্দ্র করে অল্প সময়ে বাণিজ্য শুরু করে দিয়েছে। এ বিষয়ে রাণীরবন্দর রুপালী ব্যাংকের  ব্যবস্থাপক মো: আখতারুল ইসলাম জানান, অতিরিক্ত টাকা নেয়ার বিষয়ে তিনিও অবগত আছেন তবে নির্ধারিত অভিযোগ পেলে শিওরক্যাশ ব্যবস্থাপনাকে জানিয়ে এজেন্টের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ ব্যাপারে চিরিরবন্দর প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোছা: আফরোজ জেসমিন জানান, ৩০০ টাকায় ২০ টাকা অতিরিক্ত নেয়া খুবই দুঃখজনক ব্যাপার, অতিরিক্ত টাকা নেয়ার সুনির্দিষ্ট  অভিযোগ পেলে শিওরক্যাশ কৃর্তপক্ষকে জানানো হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য