বাহরাইনের শিয়া মুসলমানদের আধ্যত্মিক নেতা শেখ ঈসা কাসিমের বাসভবনে নিরাপত্তা বাহিনীর সাম্প্রতিক হামলায় নিহতদের লাশ ফেরত না দেয়ায় সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছে আল-ওয়েফাক পার্টি।

দলের উপ প্রধান শেখ হাসান আল-দেহি এক বিবৃতিতে বলেছেন, পুলিশি হামলায় নিহতদের লাশ ফেরত না দিয়ে আলে-খলিফা সরকার সব ধরনের ‘ধর্মীয় ও মানবীয় মূল্যবোধ’ পদদলিত করেছে।

এর আগে নিহতদের পরিবারের সদস্যরা তাদের স্বজনদের লাশ ফেরত দেয়ার জন্য বাহরাইন সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল।  তারা তাদের স্বজনদের লাশ দেখতে বা দাফন করতে না পারায় স্বৈরাচারী শাসকের তীব্র নিন্দা জানান।

গত ২৩ মে মঙ্গলবার শেখ ঈসা কাসিমের বাড়িতে হামলা চালিয়ে তার পাঁচ সমর্থককে হত্যা করে তাদের লাশ নিয়ে যায় নিরাপত্তা বাহিনী।  ওই হামলায় আরো বহু লোক আহত হয় এবং পুলিশ ২৮০ ব্যক্তিকে আটক করে।

পরে শুক্রবার বাহরাইন সরকার লাশগুলো স্বজনদের কাছে ফেরত না দিয়ে নিজেরাই দাফন করে ফেলে।  দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা দাবি করেছেন, তাদের পক্ষ থেকে আয়োজিত দাফন অনুষ্ঠানে আসার জন্য নিহতদের পরিবারের সদস্যদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু তারা আসার প্রতিশ্রুতি দিয়েও পরে আসেননি।

তিনি যখন এ দাবি করছেন, তখন স্বজনরা বলছেন, তারা সরকারের পক্ষ থেকে লাশ দাফন চাননি বরং তারা শুরু থেকেই লাশ ফেরত চেয়েছিলেন। মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলছে, একটি দেশের সরকারের পক্ষ থেকে তার নাগরিকদের হত্যা করে পরিবারের অগোচরে লাশগুলো দাফন করে ফেলার মতো বর্বরোচিত আচরণ আর হতে পারে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য