ভারতের রাজধানী দিল্লিতে দুই তরুণকে রাস্তায় মুত্রত্যাগে বাধা দেওয়ায় এক রিকশা চালককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

উত্তর দিল্লির মুখার্জি নগরে একটি মেট্রো স্টেশনের পাশে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

ওই দিন বৈদ্যুতিক রিক্সার চালক ৩৪ বছর বয়সী রবীন্দ্র কুমার তাদের রিক্সার গ্যারেজের পাশের রাস্তায় দুই তরুণকে মুত্রত্যাগে বাধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই তরুণরা তাকে হুমকি দিয়ে চলে যায়।

এর প্রায় দুই ঘন্টা পর দলবল নিয়ে ফিরে এসে ওই তরুণরা পিতলের পাইপ ও তোয়ালের এক প্রান্তে পাথর বেঁধে কুমারকে মারধর করে। তারা অন্ততপক্ষে ২০ মিনিট ধরে কুমারকে পেটায় বলে জানিয়েছে তার পরিবার ও বন্ধুরা।

জনাকীর্ণ স্টেশনের পাশে রাত সাড়ে ৮টার দিকে এই ঘটনা ঘটার সময় কুমারকে রক্ষায় কেউ এগিয়ে আসেনি। পরে ওই দিন গভীর রাতে কুমারের মৃত্যু হয়।

কুমারের ভাই ভিজেন্দর কুমার জানিয়েছেন, বাসায় ফেরার পর তার শরীরে আঘাতের দৃশ্যমান কোনো চিহ্ন ছিল না, তাই সে চিকিৎসকের কাছে যায়নি। কিন্তু পরে সে অজ্ঞান হয়ে যায়।

পরিবারের সদস্যরা হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় পুলিশ একটি খুনের মামলা নিয়েছে। জড়িতদের শনাক্ত করতে পুলিশ সিসিটিভির ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখছে বলে জানিয়েছেন এক পুলিশ কর্মকর্তা।

এ ঘটনায় ’১২-১৩ বছরের’ কিশোররা জড়িত থাকতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

ভারতে প্রকাশ্যে মুত্রত্যাগ কোনো দণ্ডণীয় অপরাধ নয়। কিন্তু দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ‘ক্লিন ইন্ডিয়া’ প্রচারণা শুরু করার পর এ বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য