সুবল রায়, বিরল (দিনাজপুর) থেকেঃ অনন্য স্বাদের লাল টসটসে বিরলের লিচু এখন বাজারে। জমে উঠেছে বিরল সহ দিনাজপুরের লিচুর বাজার। অন্য রকম মিষ্টি আর বর্নিল মনকাড়া দৃষ্টি নন্দন রসে টাইটুম্বুর বিভিন্ন জাতের লিচুর মধ্যে রায়েছে বেদানা, বোম্বাই, মাদ্রাজি, চায়না থ্রি আর কাঁঠালি লিচু। লিচু বাগানে মৌ মৌ সুগন্ধে মাতাল করেছে মানুষদের। পর্যায় ক্রমে বিভিন্ন জাতের পাকা লিচু বাজারে আসতে শুরু করায় ব্যবসায়ী, ক্রেতা-বিক্রেতা ও ফরিয়ারা ব্যস্ত হয়ে পরেছেন।

দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলা জুড়ে লিচুর আবাদ হয়ে থাকে। তার মধ্যে বিরল উপজেলা ও সদর উপজেলার লিচু সু-স্বাদু ও উন্নত মানের। এ এলাকার লিচুর গুণ ও মানে চাহিদা দেশ জুড়ে। বিরল উপজেলার মাধববাটীতে ও সদর উপজেলার মাশিমপুরে দেশের উৎকৃষ্টমানের লিচু উৎপাদন করে লিচু চাষি।

এছাড়া বিরল ও সদর উপজেলার প্রায় প্রতিটি বাড়ির ভিটা, উঠান, আঙ্গিনাতেও লিচুর গাছ লাগিয়ে থাকে লিচু প্রেমিকরা। সাড়ে ৪শত কোটি টাকার লিচু কেনা বেচা হয় লিচু মৌসুমে। যা দিনাজপুরের অর্থনিতিকে সমবৃদ্ধ করে। দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর তথ্য মতে জেলায় ছোট-বড় মিলে প্রায় ৩১ হাজার লিচুর বাগান রয়েছে। প্রতিদিন দিনাজপুর থেকে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ লক্ষ লিচু রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় কিনে নিয়ে যায় লিচু ব্যবসায়ীরা। রাজধানী সহ বিভিন্ন জেলায় দিনাজপুরের লিচু চাহিদা রয়েছে। তাই দিনাজপুরের লিচু কিনে বিভিন্ন জেলায় বিক্রি করে লাভের মুখ দেখেন ব্যবায়ীরা।

প্রতি লিচু মৌসুমে দিনাজপুরে প্রায় ১লক্ষ মহিলাদের কর্মসংস্থান হয়। অন্যদিকে প্রায় ৫০ হাজার পুরুষ বিভিন্নভাবে শ্রম দিয়ে প্রতিদিন ৩ থেকে ৪শত টাকা আয় করে থাকে। যা দিয়ে সংসারের স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনে তারা।

দিনাজপুরে এবার লিচুর মৌসুমে ৪হাজার ১শত ৮০ হেক্টর জমিতে লিচু উৎপাদনের লক্ষ মাত্রা ধার্য করা হয়েছে। যা থেকে পাওয়া যাবে ২৩ হাজার ২২৭ মেট্রিকটন লিচু। দিনাজপুর জেলার সর্ব বৃহৎ লিচু উৎপাদন কারী বিরল উপজেলায় লিচুর বাম্পার ফলন হওয়ায় এখান কার মানুষ অনেক খুশি। কিন্তু দুর্ভাগের বিষয় দিনাজপুর জেলায় লিচু সংরক্ষনের কোন হিমাগার না থাকায় প্রতি বছর লিচু পচে নষ্ট হয়। যার ফলে ক্ষতি গ্রস্থ হয় লিচু উৎপাদন কারী কৃষকরা। তাই দিনাজপুরে একটি লিচু সংরক্ষনের হিমাগার স্থাপনের দাবি উঠেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য