দিনাজপুর সংবাদাতাঃ ৭ দফার সুষ্ঠ বাস্তবায়নের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের অধিকার রক্ষার দাবী জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধারা।  এছাড়াও সরকারীভাবে বারংবার যাচাই-বাচাইয়ের নামে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার তালিকা তৈরীর ক্ষেত্রে ব্যাপক দুর্নীতি এবং অনিয়ম হচ্ছে অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করলেন যাচাই-বাচাই এ হয়রানী হওয়া সাধারন মুক্তিযোদ্ধারা।

রবিবার বেলা সাড়ে ১২টায় দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সাধারন মুক্তিযোদ্ধাদের আয়োজেনে মুক্তিযোদ্ধাদেও মতবিনিময় সভা ও সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন মুক্তিযুদ্ধকালিন ভারতের শিববাড়ি মুক্তিবাহিনী ক্যাম্পের ডেপুটি কমান্ডার অধ্যাপক আনোয়অরুল কাদির জুয়েল। এসময় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন তৎকালিন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ দিনাজপুরের সাধারন সম্পাদক সাবেক অধ্যক্ষ সাইফুদ্দীন আখতার।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে দাবী করা হয়েছে,এক শ্রেণীর মুক্তিযোদ্ধা ভুয়া নেতারা যাচাই-বাচাইয়ের নামে বানিজ্য করছে। কোন কোন সময় ওই নেতারা ৩০ হাজার থেকে ৫ লাখ টাকার উৎকোচ নিয়ে মুকিযোদ্ধাকে সত্যায়ন করছে। এধরনের উদ্দ্যোগকে কোন ভাবেই মেনে নেয়া যায় না। যারা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা তাদের সর্ম্পকে খোঁজখবর নিয়ে তারপরেই তালিকা প্রস্তুতের দাবী করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে ৭ দফার মধ্যে উল্লেখযোগ্য দাবী গুলো হলো মুক্তিযোদ্ধার ভাতা ২৫ হাজার টাকা ও ৫টি বোনাস দিতে হবে,মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ঘোষিত ৩০% পোষ্যকোঠায় নাতি নাতনিদের চাকুরীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য আইন গেজেট নোটিফিকেশন করতে হবে,বসতবাড়ির হোল্ডিং ট্যাক্স ও ২০০ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিল মওকুফ করতে হবে।

তারা বলেন,বঙ্গবন্ধু তনয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযোদ্ধাদেন কল্যানে সরকার গঠনের পর হতেই নানাভাবে কাজ করে যাচ্ছেন,আমরা তাকে সহযোগীতার মাধ্যমে নিজেদের ন্যায় সঙ্গত দাবী বুঝে নিতে চাই।

আনোয়অরুল কাদির জুয়েল,শিববাড়ি ক্যাম্পের সদস্য বগুড়া সারিয়কান্দির ওসমানগনি এবং মোঃ শাহজাহান আলী একই সঙ্গে যুদ্ধ করেছিল এবং মুক্তিবার্তা(লাল) অর্ন্তভুক্তির মাধ্যমে আজা ওই ২জন ভাতা পাচ্ছে। অথচ একই ক্যাম্পের অন্য সদস্য মোঃ সেকেন্দার আলী,মোঃ আফতাব হোসেন, মোঃ সায়েম উদ্দীন,মোঃ আব্দুল বাসেদ,ইলিয়াস উদ্দীন আহম্মেদ ও মোঃ ফজলুল হকের নাম গেজেটে থাকায় তারা এখন ভাতা পাচ্ছেন না। ওই ৬ জন আমাদের সাথে ৭নং সাব সেক্টরে অংশ নিয়ে প্রশিক্ষন ও যুদ্ধ করেছে, আমরা এই সংবাদ সম্মেলন থেকে দাবী করছি প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাদের তালিকাভুক্ত করে ভাতা প্রদান করা হউক।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন,বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোস্তাকিম আলী,মোঃ সেকেন্দার আলী,মোঃ সায়েম উদ্দীন, মরহুম মুক্তিযোদ্ধা ইলিয়াস আহম্মেদও স্ত্রী রানী সরকার প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য