ইহুদিবাদী ইসরাইলের কারাগারে আটক ৭৬ জন অনশনরত ফিলিস্তিনি বন্দিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কয়েকটি দাবিতে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি বন্দির অনশন ধর্মঘট শুরুর ৩০তম দিনে এ খবর পাওয়া গেল।

আরবি ভাষার আল-আকসা টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এ খবর জানিয়ে বলেছে, অসুস্থ ৭৬ ফিলিস্তিনি বন্দির সবাই ইসরাইলের ‘অফের’ কারাগারে আটক ছিলেন। তাদেরকে চিকিৎসা দেয়ার জন্য ‘হাদরিম’ ফিল্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এসব বন্দিকে জোর করে খাবার খাওয়ানো হতে পারে বলে ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

আল-আকসা টিভি আরো জানিয়েছে, এর একদিন আগে অসুস্থ হয়ে পড়া আরো ৩৬ বন্দিকে একই উদ্দেশ্যে হাসপাতালে নেয়া হয়।

এদিকে ইসরাইলি কারাগারে চলমান গণ অনশন কর্মসূচির নেতা মারওয়ান বারগুতি বলেছেন, ইসরাইলি কারাগারের দুঃসহ পরিস্থিতির প্রতিবাদ জানাতে তিনি এখন থেকে খাবার পানি পানও বন্ধ করে দেবেন।

৫৭ বছর বয়সি ফাতাহ আন্দোলনের সাবেক নেতা বারগুতি আরো বলেছেন, তাদের দাবি মানতে ইহুদিবাদী কর্তৃপক্ষকে বাধ্য করার জন্য তিনি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। ফিলিস্তিনের বন্দি বিষয়ক কমিটি বারগুতি’র আইনজীবীর বরাত দিয়ে তার এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে।

মারওয়ান বারগুতির আহ্বানে সাড়া দিয়ে গত ১৭ এপ্রিল থেকে প্রায় ১,৬০০ ফিলিস্তিনি বন্দি গণ অনশন ধর্মঘট শুরু করেন। ফিলিস্তিনি জনগণকে বিনা বিচারে আটক, নির্জন কারাগারে নিক্ষেপ এবং চিকিৎসা সুবিধা না দেয়ার মতো বন্দিদের মৌলিক অধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদে এই অনশন ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়।

ফিলিস্তিনি ইন্তিফাদা আন্দোলনে ভূমিকা রাখার অভিযোগে ইসরাইলি আদালত বারগুতির বিরুদ্ধে পাঁচ বার যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে। তিনি অনশন ধর্মঘটের ডাক দেয়ার পর থেকে তাকে নির্জন সেলে রাখা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য