মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর থেকে॥ বিরল উপজেলার কামদেবপুর গ্রামে মাহমুদা নামের ৮ বছরের এক শিশু কন্যা অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে ধুঁকে ধুকে শেষ হয়ে যাচ্ছে। শিশুটির গোটা শরীরে ফোঁসা উঠে ফেটে গিয়ে আঠালো রস বের হয়। আস্তে আস্তে ফোঁসার আঠালো রস দিয়ে হাত-পায়ের আঙ্গুলগুলো জোড়া লেগে যাচ্ছে।

২০১৪ সাল থেকে পাবর্তীপুর ল্যাম্ব হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। কিন্তু কোন ফল পাচ্ছেন না। মাঝখানে গত বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারী দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তারকে দেখিয়েছিলেন। তখন চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে ছিলেন। কিন্তু অর্থের অভাবে ঢাকার হাসপাতালে নেওয়া সম্ভব হয়নি। এখনও পাবর্তীপুর ল্যাম্ব হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে।

শিশুটির বাবা আব্দুর রহিম জানান, যতই দিন যাচ্ছে ততই গোটা শরীরে ফোঁসা উঠছে। ফোঁসার যন্ত্রানায় সার্বক্ষণিক ছট ফট করে অঅমার মেয়ে। তখন নিজেকে খুবই কষ্ট লাগে, কিন্তু কি করব ! অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসা করাতে পারছি না। আমার মেয়ের চিকিৎসা করার সাধ্য আর আমার নেই। চোখের সামনে আমার অবুঝ শিশুকন্যা ধুঁকে ধুঁকে মরছে। আমি আর সহ্য করতে পারছি না।

আব্দুর রহিম সমাজ তথা দেশের ধনাঢ্য দানশীল ব্যক্তিদের কাছে সাহায্য চেয়ে আবেদন জানিয়েছেন। ডাচ্ বাংলা ব্যাংক, দিনাজপুর শাখার সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর- ১৭২.১৫১.১৫২৩৯৬ এবং ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং- ০১৭৫১-৩০০১৭৮৩ নম্বরে সাহায্যের জন্য সকলের প্রতি আবেদন করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য