দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরে স্ত্রীকে হত্যা করে পলাতক ঘাতক স্বামী ফজলুর রহমান (৪৬) ও  সতীন কহিনুর বেগম (৩৬)কে  গাজীপুর টঙ্গী থেকে আটক করেছে  পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) দিনাজপুর ইউনিট ।

আজ সোমবার দুপুরে  ইউনিট প্রধান দিনাজপুর  জেলা অতিরিক্তি পুলিশ সুপার পিআইবি মধুসূদন রায় ঘাতক স্বামী ও অপর স্ত্রীকে আটকের সংবাদ নিশ্চিত করেছেন ।

গত রোববার ( ১৪ মে) ঘাতক স্বামী ফজলুর রহমানকে আদালতে সোপর্দ করলে পরকীয়া প্রেমের কারনে তার প্রথম স্ত্রী রাবেয়া বেগমকে তাহার শাড়ীর আঁচল দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার কথা স্বীকার করেন অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্টেট আদালতে । স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি শুনার পর আদালত ঘাতক স্বামীকে কারাগারে প্রেরন করেছে ।

ঘাতক স্বামী  ফজলুর রহমান  দিনাজপুর সদরের নশিপুর মোল্লাপাড়ার শাহির উদ্দীনের ছেলে । আর হত্যার সময় সহযোগিতাকারী  কহিনুর বেগম  একই জেলা সদরের মহারাজপুর মোল্লাপাড়ার  হাসিম উদ্দীনের কন্যা ।

প্রথম স্ত্রীকে হত্যা করে পালিয়ে গিয়ে গাজীপুর টঙ্গীতে র্গামেন্টসে চাকুরী করা অবস্থায় ফজলুর রহমান আবার কহিনুর বেগমকে বিয়ে করে সংসার করছে ।

পিবিআই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ ইকরামুল হক জানায়  গত ৯ই মে ২০১৫ তারিখে  দিনাজপুর জেলার কোতয়ালী থানাধীন নশিপুর মোল্লাপাড়ায় স্বামী ফজলুর রহমান তার প্রথম স্ত্রী  রাবেয়া বেগম (৩৬) কে দিবাগত রাত্রে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং ঘটনাটি আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার জন্য মুখে বিষ ঢেলে দেয়। ঘটনার পর পরই  ঘাতক স্বামী ফজলুর রহমান পালিয়ে।

গত -১০ই মে ২০১৫ খ্রিঃ, ধারা-৩০২/৩৪ দঃবিঃ কোতয়ালী থানায় একটি হত্যা মামলা  দায়ের করা হয় যার নং-১৮, কোতয়ালী থানা পুলিশ দীর্ঘদিন মামলাটি তদন্ত করে এজাহার নামীয় মূল আসামী মৃতের স্বামীকে পলাতক দেখিয়ে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। মূল আসামীকে পলাতক দেখিয়ে অভিযোগপত্র দাখিল করে আদালতে । পরে মামলাটি পূর্ণতদন্তভার পিবিআই দিনাজপুর এর উপর অর্পন করেন আদালত।

পিবিআই দিনাজপুরের এসআই মোঃ ইকরামুল হক মামলা তদন্তের দায়িত্ব পেয়ে চলতি মাসের ১২ মে  গাজীপুর জেলার টঙ্গী থানা এলাকা হতে হত্যার মূল আসামী মৃতের স্বামী ফজলুর রহমান এবং মামলার এজাহার নামীয় সতীন কহিনুর বেগমকে গ্রেফতার করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য