রজব আলী, ফুলবাড়ী দিনাজপুর থেকেঃ দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির কারনে ভূমি অবনমন হয়ে ও কয়েক দিনের ভারি বর্ষনে, আবারো তলিয়ে গেছে ফুলবাড়ী-বড়পুকুরিয়া বাজারের সড়কটি, ফলে তলিয়ে যাওয়া সড়ক দিয়ে জিবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে, ফুলবাড়ী থেকে বড়পুকুরিয়া বাজার হয়ে খয়েরপুকুর হাট প্রর্যন্ত শত শত ছোট্র-বড় যানবহনসহ পথচারী ও স্কুল কলেজে অধ্যায়নরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীগণ।

এলাকাবাসীরা বলছেন খনির কারনে ভুমি অবনমন হয়ে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, তারা জানায় গত এক বছর আগে একই কারনে এই সড়কটি তলিয়ে যায়, সে সময় খনি কর্তৃপক্ষ সড়টির উপর রাবিস দিয়ে উচু করে, এই বছর আবারো তলিয়ে গেল। বড়পুকুরিয়া এলাকার বাসিন্দা লিয়াকত আলী  বলেন খনি থেকে কয়লা উত্তোলন করার কারনে প্রতি দিনে এই এলাকায় ভূমি অবনমন হয়, যার ফলে রাস্তা-ঘাট তলিয়ে যায়, বাড়ী-ঘরে ফাটল ধরে। গত ২০১১ সালে ভুমি অবনমনের কারনে খনি কর্তৃপক্ষ ৬৫৬ একর জমি অধিগ্রহন করলেও চলাচলের এই রাস্তাটি অনাত্র সরিয়ে নেয়নি ফলে রাস্তাটির নতুন নতুন জায়গা তলিয়ে যাচ্ছে।

রাস্তাটি দিয়ে চলাচলরত যানবহনের চালকেরা জানায়, এই রাস্তাদিয়ে পার্বতীপুর উপজেলার খয়েরপুকুর হাট,হামিদপুর ইউনিয়নের খলিলপুর সুলতানপুর সরদারপাড়া,বাশঁপুকুর, বৈদ্যনাথপুর, শিবকৃষ্ণপুর গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ যাতায়াত করে। এলাকাবাসীরা বলেন, এই এলাকাটি পার্বতীপুর উপজেলার হলেও, ফুলবাড়ী উপজেলার নিকটবতী স্থান ও যাতায়াতের সুবিদার্থে তারা ফুলবাড়ী উপজেলার হাট বাজারের উপর নির্ভশীল, তাদের উৎপাদিত কৃষিপন্য তারা ফুলবাড়ী বাজারে বেচা-কেনা করে থাকে, ফলে এই রাস্তটি এই অঞ্চলের মানুষের জিবন-জিবিকার সাথে জড়িত। কিন্তু রাস্তাটি বার বার তলিয়ে যাওয়ায় তারা বিপাকে পড়ছে।

এই বিষয়ে বড়পুকুরিয়া কোলমাইনিং কোম্পানী লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, এলাকাবাসীর দর্ভোগের কথা চিন্তা করে রাস্তাটি মেরামতের জন্য ইতিমধ্যে টেন্ডার দিয়ে ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়েছে, এখন কাজ শুরু হবে। রাস্তাটি মেরামত করা হলে এই দুর্ভোগ আর থাকবে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য