পোশাক নির্বাচনে গায়ের রং, দেহের কাঠামো ও উচ্চতার কথা মাথায় রাখা উচিত।

বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের ‘বস্ত্রপরিচ্ছদ ও বয়নশিল্প’ বিভাগের অধ্যাপক শাহ্‌মিনা রহমান বলেন, “সামর্থ্য আর পছন্দ অনুযায়ী পোশাক কেনার পাশাপাশি নিজের সঙ্গে মানানসই পোশাক নির্বাচন করাও গুরুত্বপূর্ণ।”

“পোশাক নির্বাচনে গায়ের রং, দেহের কাঠামো ও উচ্চতার কথা মাথায় রাখা উচিত। এছাড়াও ঋতু, আবহাওয়া, বয়স ও কাজের ধরন বিবেচনা করে পোশাক নির্বাচন করতে হবে।” বললেন তিনি।

গায়ের রং, দৈহিক গঠন, আকার এবং উচ্চতার কথা বিবেচনা করে পোশাক নির্বাচন সম্পর্কে পরামর্শ দেন তিনি-

গায়ের রং

উজ্জ্বল বর্ণের অধিকারীদের সব রংয়ে দেখতে ভালো লাগে। এখন গরমকাল তাই হালকা ও স্নিগ্ধ রং তাদের জন্য বেশি মানানসই। শ্যাম বর্ণের অধিকারীরা হালকা এবং উজ্জ্বল রংয়ের পোশাক পরতে পারেন। সেক্ষেত্রে লাল, নীল, কমলা, হলুদ ও সবুজের নানা ধরনের শেইড বেছে নিতে পারেন। যাদের গায়ের রং অপেক্ষাকৃত চাঁপা তাদের খুব বেশি গাঢ় ও চড়া রং এড়িয়ে চলাই ভালো।

নীল, সবুজ, লাল, বাদামি ইত্যাদি রং সব বর্ণের মানুষের সঙ্গেই মানিয়ে যায়। গ্রীষ্মকাল মাথায় রেখে এই রংগুলোর হালকা শেইড বেছে নিতে পারেন যে কেউ।

দেহের আকার

দেহের আকারভেদে পোশাকের ছাপা ও স্ট্রাইপ নির্ধারন করার পরামর্শ দেন শাহ্‌মিনা রহমান। তিনি পুরুষ ও নারীর জন্য ভিন্ন ভিন্ন টিপস দেন।

নারী- যারা স্থূলকায় তারা গাঢ় রং ও মাঝারি ছাপার কাপড় বেছে নিতে পারেন। খুব বেশি বড় ছাপার কাপড় পরলে স্থূলকায়দের দেখতে আরও বেশি মোটা লাগে এবং ক্ষীণকায়দের দেখতে আরও বেশি চিকন লাগে।

যারা তুলনামূলক চিকন তাদের জন্য হালকা রংয়ের কাপড়ের উপর ছোট বা মাঝারি ছাপার পোশাক বেশি মানানসই।

পুরুষ- স্থূলকায় পুরুষরা ঢিলাঢালা ও হালকা ছাপা বা ছাপাহীন পোশাক পরতে পারেন। পছন্দ মতো যে কোনো রংয়ের প্রাধান্য দিতে পারেন। তবে গরমকালে কালো এড়িয়ে চলাই ভালো।

মধ্যম স্বাস্থ্যের অধিকারীরা উজ্জ্বল রং ও হালকা ছাপা বা উলম্ব বা আড়াআড়ি রেখার পোশাক পরতে পারেন।

যারা হালকাপাতলা গড়নের তাদের জন্য একরঙা হালকা পোশাক বেশি মানানসই। টি-শার্ট বা শার্টের রেখা নির্ধারণের ক্ষেত্রে আড়াআড়ি রেখার প্রাধান্য দিন। উলম্ব রেখার পোশাক নির্বাচন না করাই উচিত। এতে দেখতে আরও বেশি শুকনা লাগে।

দেহের গঠন ও উচ্চতা

দেহের গঠন অনুযায়ী পোশাক পরলে দখতে আরও বেশি আকর্ষণীয় লাগে।

নারী- সাবলীল দৈহিক গঠনের অধিকারীরা সব ধরনের পোশাক ব্যবহার করতে পারেন। যারা তুলনামুলক মোটা বা চিকন তারা পোশাক নির্বাচন করতে ঢিলেঢালা ও উজ্জ্বল রং প্রাধান্য দিতে পারেন। এতে খুব বেশি মোটা বা চিকন চোখে পড়বে না।

যেসকল নারী লম্বা তারা গাঢ় রং প্রাধান্য দিতে পারেন। খুব বেশি ছোট পোশাক না পরে মাঝারি উচ্চতার পোশাক বেছে নিন, এতে বেশি আকর্ষণীয় লাগে।

যাদের উচ্চতা কম তারা খুব বেশি ঢিলা বা আঁটসাঁট পোশাক পরবেন না, ‘লুজ ফিটিং’ পোশাক এদের জন্য বেশি মানানসই। জ্যামিতিক নকশার ক্ষেত্রে আড়াআড়ি রেখা বাদে যে কোনো নকশা বেছে নিতে পারেন।

পুরুষ- সুঠাম দেহের অধিকারীদের গাঢ় ও উজ্জ্বল রংয়ের পোশাকে ভালো লাগে। এরা চাইলে যে কোনো ধরনের জ্যামিতিক আকারের পোশাক পরতে পারে। ফিটিং পোশাক যেমন: টি-শার্ট, শার্ট, পাঞ্জাবি ইত্যাদি যে কোনো পোশাকেই দেখতে ভালো লাগে।

মোটা এবং চিকন উভয়ের হালকা রং ও ঢিলেঢালা পোশাক বেছে নেওয়া উচিত। গাঢ় বা ফিটিং পোশাক পরলে মোটাকে আরও বেশি মোটা ও চিকনকে আরও বেশি চিকন লাগে।

তবে চিকন মানুষদের খুব বেশি ঢিলা পোশাক না পরে অল্প ‘লুজ ফিটিং’ পোশাক পরার পরামর্শ দেন শাহ্‌মিনা।

যারা লম্বা তাদের পোশাকের ধরনে খুব বেশি যাচাই বাছাই করার প্রয়োজন না থাকলেও খেয়াল রাখতে হবে যেন খুব বেশি ছোট ও কম উচ্চতার পোশাক পরা না হয়। কারণ লম্বা ব্যক্তিকে ছোট পোশাকে দেখতে খুব বাজে লাগে। যাদের উচ্চতা কম তারা মাঝারি মাপের পোশাক পরলে দেখতে বেশি ভালো লাগবে।

ছবি সৌজন্যে: কে ক্রাফট।

(সংগ্রহিত)

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য