পাকিস্তানের চমন সীমান্তে আফগান বাহিনীর গুলি ও গোলাবর্ষণে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর এক ও আধাসামরিক বাহিনীর এক সেনাসহ অন্তত ১২ জন নিহত হয়েছে।

শুক্রবারের এ ঘটনায় আরো ৪০ জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে দ্য ডন।

ডনের প্রতিবেদনে কর্মকর্তাদের বরাতে বলা হয়, চমনের কিল্লি লুকমান ও কিল্লি জাহাঙ্গির গ্রামে আদমশুমারি চালাকালে সরকারি কর্মীদের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পাকিস্তানের আধা সামরিক বাহিনী ফ্রন্ট্রিয়ার কর্পসের (এফসি) সেনাদের লক্ষ্য করে হামলা চালায় আফগান বাহিনী।

হামলার সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানি সেনারা অবস্থান নিয়ে পাল্টা গুলিবর্ষণ শুরু করে বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানি কর্মকর্তারা।

দুপক্ষের সংঘর্ষ শুরু হওয়ার পরপরই পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ ওই সীমান্তের ফ্রেন্ডশিপ গেইট বন্ধ করে দেয়।

পাকিস্তান সামরিক বাহিনীর আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ অধিদপ্তর আইএসপিআরের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, আহতদের মধ্যে বেলুচিস্তানি এফসির চার জওয়ান রয়েছে।

নিহতদের ১০ জন বেসামরিক এবং এদের মধ্যে চারটি শিশু, পাঁচজন নারী ও এক কিশোর রয়েছেন বলে জানিয়েছেন চমন জেলা হাসপাতালের ডেপুটি সুপার। আহত ৪০ জনকে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

পাকিস্তানি নিরাপত্তা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আফগান সীমান্ত পুলিশকে আদমশুমারির কথা আগেভাগে জানানোর পরও তারা হামলা চালায়। হামলায় আফগান বাহিনী হাল্কা থেকে ভারী অস্ত্র ও মর্টার শেল ব্যবহার করেছে ব্যবহার করেছে বলে জানিয়েছেন তারা।

চমন সীমান্তের গ্রাম ও শহরে গোলাবর্ষণ করার পর সেখানে অতিরিক্ত এফসি জওয়ান ও সামরিক বাহিনীর সেনা পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ।

বিতর্কিত সীমান্তের কারণে আফগান বাহিনী ওই দুটি গ্রামে পাকিস্তানি আদমশুমারির কার্যক্রমে বাধা দিয়েছে বলে জানা গেছে। শেষ খবরে জানা গেছে, দুপক্ষের সামরিক বাহিনীর ঊর্ধ্বতন পর্যায়ে যোগোযোগের পর চমন সীমান্তের পরিস্থিতি শান্ত হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য