নায়লা নাঈম। সাম্প্রতিক সময়ে দেশীয় শোবিজের আলোচিত, সমালোচিত ও বিতর্কিত একটি নাম। পেশায় ডেন্টিস্ট হলেও সর্বপ্রথম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের খোলামেলা সব ছবি পোস্ট করে সবার নজরে আসেন। শুধু খোলামেলা বললে ভুল হবে। এই ছবিগুলোর বেশিরভাগই অর্ধনগ্ন ও নগ্ন পোজের। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা কম হয়নি।

কারণ ব্যক্তিগত ফটোসেশন করে এরকম আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে পোস্ট দেয়াটাকে কেউ স্বাভাবিকভাবে দেখেননি। কিন্তু বিতর্কের বিপরীতে একের পর এক তোলা অর্ধনগ্ন ছবি পোস্ট করে যাচ্ছেন তিনি। তার এই অসংযত ছবি পোস্ট দেয়ার তীব্র নিন্দা জানান র‌্যাম্প ও টিভি মডেলিংয়ের বেশ কজন তারকাও।

তবে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর খবর হলো, নিজের ফেসবুক পেজের মাধ্যমে নায়লা নাঈম বিভিন্ন ধরনের বিতর্কিত ও অশ্লীল পোস্ট ছড়াচ্ছেন। তার ফেসবুক পেজের ফলোয়ার হলো প্রায় ২৭ লাখ ৬৫ হাজারেরও বেশি। কিন্তু নিজের এ পেজটি থেকে প্রতিদিনই একাধিক বিতর্কিত পোস্ট করছেন তিনি, যা তরুণ সমাজকে নষ্ট করায় সহায়ক ভূমিকা পালন করছে বলেও মনে করছেন অনেক মিডিয়া ব্যক্তিত্ব।

অনেকেই বলছেন অর্থের বিনিময়ে এসব পোস্ট করছেন নায়লা। বিভিন্ন আন্ডারগ্রাউন্ড অনলাইন পত্রিকা, ইউটিউব চ্যানেল ও ওয়েবসাইটের প্রমোশনের দায়িত্ব নিয়েছেন তিনি। গতকাল বিকাল পর্যন্ত নায়লার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে যে ৫টি পোস্ট করা হয়েছে সেগুলো হলো যথাক্রমে, ‘দেখুন আলোড়ন সৃষ্টিকারী ইন্ডিয়ান নায়িকা বিদ্যা বালানের হট ভিডিওটি’, ‘সমবয়সী কোন মেয়েকে বিয়ে করলে যা হয়’, ‘চরম হট তামিল শর্টফিল্ম, মাথা নষ্ট মাম্মা’, ‘সালমান শাহের স্ত্রী সামিরা স্মৃতি ভুলে গিয়ে কোথায় কি করছেন, দেখুন ভিডিওতে’ এবং ‘তামিল মডেল হট এক্সক্লুসিভ রোমান্টিক ভিডিও, না দেখলে মিস করবেন’।

এ ধরনের হাজারো পোস্টে ছেয়ে আছে নায়লার ফেসবুক পেজের ওয়াল। বিষয়টি বেশ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে পুরো মিডিয়ার জন্য। এদিকে নায়লার বেশ কিছু হট ভিডিও রয়েছে ইউটিউবেও। বিতর্কিত ছবি ও ভিডিও পোস্টের কারণে দেশীয় ‘সানি লিওন’ আখ্যাও পেয়েছেন তিনি। কিছু মিউজিক ভিডিওতেও কাজ করেছেন ব্যাপক খোলামেলা হয়ে।

নায়লার আলোচনাকে কাজে লাগাতে প্রস্তাব আসে চলচ্চিত্র থেকেও। ‘রানআউট’ ছবির মাধ্যমে হট আইটেম কন্যা হিসেবে পর্দায় অভিষেক হয় তার। উত্তাপ ছড়িয়েছেন ‘রাত্রীর যাত্রী’র আইটেম গানেও। তবে মিডিয়ার সঙ্গে তেমন একটা যোগাযোগ রাখতে পছন্দ করেন না তিনি। তার নম্বরটিতে একাধিকবার ফোন করা হলেও বন্ধ পাওয়া যায় সেটি।

এদিকে এরই মধ্যে মডেল ও চলচ্চিত্র অভিনেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া নায়লার কর্মকা- নিয়ে সমালোচনা করেন। একটি জাতীয় দৈনিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, কিছু কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান নায়লার বিতর্কিত ইমেজ ব্যবহার করে ফায়দা নিচ্ছে। এটা একদমই হওয়া উচিত নয়। পিয়ার সুরে তাল মিলিয়ে মিডিয়ার অনেকে বলেছেন, নগ্নতার মাধ্যমে মিডিয়ায় টিকে থাকা অতীতেও যায়নি, এখনও যাবে না। কাজকেই গুরুত্ব দিতে হবে। না হলে এ ধরনের কর্মকা-ের ফলে আরো অনেক উঠতি মডেলই নায়লার পথ অনুসরণ করবেন। আর সেটা হবে পুরো মিডিয়ার জন্য ভয়ঙ্কর একটি বিষয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য