বিশ্বসংগীতের পপ সেনসেশন জাস্টিন বিবারের অন্ধভক্তদের বলা হয়ে থাকে ‘বিলিভারস’। তাকে সামনে দেখতে ভারতীয় বিলিভারসদের আর তর সইছে না। ‘পারপাস ট্যুর’-এর অংশ হিসেবে কানাডিয়ান এই তারকা দুবাই থেকে ভারতের মুম্বাইয়ে এসে পৌঁছাবেন আগামি ৭ মে। এর দুই দিন পর অর্থাৎ ১০ মে জমকালো কনসার্টে সংগীত পরিবেশন করবেন তিনি।

জানা গেছে, বিবারের সঙ্গে থাকছে ১২০ জনের একটি দল। বিমানবন্দর থেকে পাঁচতারা হোটেলে তাদের নিয়ে আসা ও হোটেল থেকে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতের জন্য সার্বক্ষণিক থাকবে ১০টি বিলাসবহুল মার্সিডিজ, বিএমডব্লিউ ও পোর্শে গাড়ি এবং দুটি ভলভো বাস। এ ছাড়া গ্র্যামিজয়ী এই গায়কের জন্য বরাদ্দ থাকবে রোলস-রয়েস ব্র্যান্ডের একটি দামি গাড়ি।

বিবারকে যেসব খাবার পরিবেশন করা হবে তা তত্ত্বাবধান করবেন ভারতের শীর্ষ একজন রন্ধন বিশেষজ্ঞ। খাবারগুলোর নামকরণ হবে ২৩ বছর বয়সী এই তারকার জনপ্রিয় গানের নামে। তার নিজের দেহরক্ষী ছাড়াও সবসময় থাকছে চারস্তরের নিরাপত্তা। এ ক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন করবে মহারাষ্ট্রের পুলিশও।

কনসার্ট আয়োজকদের একটি সূত্র জানিয়েছে, কনসার্টের ভেন্যুর মঞ্চের পেছনে ১০টি কন্টেইনার, একটি পিং-পং টেবিল, প্লে স্টেশন, হভার বোর্ড, সোফা সেট, ওয়াশিং মেশিন, রেফ্রিজারেটর, সুদৃশ্য আসবাবপত্র, থালাবাসন ও খাবার রাখার আলমারি এবং একটি ম্যাসাজ টেবিলের ব্যবস্থা করতে হচ্ছে।

গান গাইতে যাওয়ার আগে স্বাচ্ছন্দ্যবোধের জন্য মঞ্চের পেছনে শরীর ম্যাসাজ করার জন্য উষ্ণ ও শীতল জলের ক্ষুদ্র একটি কৃত্রিম পুকুরও চান বিবার। তার ম্যাসাজের দেখভাল করার জন্য বিশেষজ্ঞ একজনকে নিয়ে আসা হচ্ছে কেরালা থেকে।

সূত্রটি যোগ করে আরও জানায়, জাস্টিন বিবারের নিরাপত্তাজনিত কারণে দুটি পাঁচতারা হোটেল সংরক্ষিত রাখা হয়েছে। এর মধ্যে হোটেলের এমন একটি নির্ঝঞ্ঝাট অংশে তাকে রাখা হবে, যেখান থেকে বাইরে তাকালে সুদৃশ্য লাগে সবকিছু।

পূর্বশর্ত অনুযায়ী কক্ষে থাকবে বিশাল আকারের একটি শোবার বিছানা। হোটেলে তার থাকার ঘরটি নতুন আঙ্গিকে সাজানো হচ্ছে। এখানে থাকবে মুঘল আমলের চিত্রকর্ম, প্রাচীন আসবাবপত্র ও প্রসিদ্ধ কাশ্মিরী বিছানার চাদর ও বালিশের মোড়ক। কক্ষটি সাজানো হবে তার প্রিয় রঙ বেগুনি কার্নিশন ফুলে।

হোটেলের একটি লিফট শুধুই বিবারকে ওঠানো ও নামানোর কাজে ব্যবহৃত হবে। এখানে তার জন্য থাকছে ২৪ ঘণ্টার ফিটনেস সেন্টার। সব মিলিয়ে হোটেলটি রূপান্তরিত হয়ে যাবে জাস্টিনের ব্যক্তিগত প্রাসাদে! এ ছাড়া তিনটি তলা বরাদ্দ করা হয়েছে তার সঙ্গের অন্য সংগীতশিল্পী ও দলের সদস্যদের জন্য।

সূত্রটি আরও বলেছে, যোগব্যায়ামের প্রতি জাস্টিন বিবারের আলাদা ভালোলাগা আছে। তাই ভারতীয় যোগব্যায়ামের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রও চেয়েছেন তিনি। এজন্য তাকে একটি ঝুড়িতে ভরে পাঠানো হবে সুরভিত তেল, জুঁই, মোগরা ও গোলাপ ফুল এবং কর্পূরের ধূপ লাঠি। এ ছাড়া তিনি পাবেন যোগব্যায়ামের ওপর লেখা বিভিন্ন বই।

বিবারের বিশেষ চাহিদার তালিকায় আরও আছে ১০০টি হ্যাঙ্গার, বুনো ফলের জুসের ক্যান, ভ্যানিলা রুম ফ্রেশনার্স ও ঠোঁটে ব্যবহারের উপযোগী সুগন্ধি মলম। তিনি যদি হুট করে কোথাও বেড়াতে যেতে চান সেজন্য আয়োজকরা স্ট্যান্ড-বাই হিসেবে রাখছেন একটি উড়োজাহাজ ও একটি হেলিকপ্টার। ১০ মে স্টেডিয়ামে হেলিকপ্টারে চড়েই যাবেন তিনি।

মঞ্চের পেছনে জাস্টিন ও তার দলবলের জন্য বরাদ্দ করা হচ্ছে ১৩টি কক্ষ। এগুলোতে থাকবে তাজা ফুল (লিলি ফুল ব্যতিত), সুগন্ধি মোমবাতি, স্বাস্থ্যসম্মত খাবার যেমনÑ নারকেলের পানি, বাদামের দুধ, স্ট্রবেরি ও ভ্যানিলা প্রোটিন গুঁড়া, কাঁচা জৈব মধু, ক্যাফেইনহীন ভেষজ চা, তাজা ফল, সবজি ও কাঁটাচামচ।

জাস্টিন বিবার চান, কনসার্টের ভেন্যুতে তার ড্রেসিং রুমের সবকিছু থাকবে সাদা কাপড় দিয়ে সাজানো এবং সাদা পর্দায় মোড়ানো। তিন কাচের দরজাবিশিষ্ট বিশাল আকারের রেফ্রিজারেটর, কাপড় রাখার তাক, আটটি বৈদ্যুতিক আউটলেট এবং একডজন সাদা রুমালও চেয়েছেন তিনি। তার বিশেষ চাহিদাগুলো পূরণ করতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন আয়োজকরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য