এ যুগে বাস করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এড়িয়ে চলা কি সম্ভব? নামী-দামী তারকাদের জন্য এটি আরও কঠিন হওয়ারই কথা। তবে সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে হলিউড অভিনেত্রী এমা ওয়াটসন বললেন উল্টো কথা!

‘হ্যারি পটার’ সিরিজে প্রধান নারী চরিত্রে দেখা গেছে তাকে। হারমায়োনি চরিত্রে অনবদ্য অভিনয়ের জন্য আজও তাকে মনে রেখেছে দর্শক। পরবর্তীতে ২০১১ সালে ‘মাই উইক উইথ মেরিলিন’ ছবির মাধ্যমে শিশু অভিনেত্রীর খোলস ছেড়ে বেড়িয়ে আসেন তিনি। এরপর তাকে গেছে ‘দ্য পার্ক অফ বিয়িং অ্যা ওয়ালফ্লাওয়ার’, ‘নোয়া’, ‘রিগ্রেশন’, সহ বেশ কিছু ছবিতে। সর্বশেষ ডিজনি’র ‘বিউটি এ্যান্ড বিস্ট’য়ে বেলা চরিত্রে দেখা গেছে তাকে।

সম্প্রতি ২৭ বছর বয়েসি এ অভিনেত্রী জানালেন তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ভীতির কথা। ই-নিউজ’কে দেওয়া সাক্ষাতকারে এমা বলেন, “সুস্থ থাকার জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এড়িয়ে চলি। আমি নিজেকে যন্ত্র মনে করি না। আমি একজন মানুষ আর সেজন্য ভার্চুয়াল দুনিয়া থেকে দূরে থাকাটাই ভালো মনে হয় আমার কাছে।”

শুধু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করা থেকে দূরেই থাকেন না বরং ইন্সটাগ্রাম কিংবা টুইটারে কারও কোনো পোস্ট কিংবা কমেন্টও পড়েন না তিনি। কারণ হিসেবে এমা বলেন, “আমার মনে হয় ভার্চুয়াল মিডিয়া আমাদের মানসিক শান্তি কেড়ে নেয়। আমাদের মনের উপর এগুলোর অনেক প্রভাব রয়েছে। তাছাড়া পুরো ব্যাপারটাই আমার কাছে কৃত্রিম মনে হয়। আমি একজনের সঙ্গে ভার্চুয়ালি সময় কাটাচ্ছি কিন্তু সেখানে আমি সত্যিকারে উপস্থিত নই- এই অনুভূতিটা আমার ভালো লাগে না।”

বিল কনডনের ‘বিউটি এ্যান্ড দ্য বিস্ট’য়ের জন্য ২০১৬’য়ের সাড়াজাগানো ছবি ‘লা লা ল্যান্ড’ ফিরিয়ে দিয়েছিলেন এমা ওয়াটসন। তার জায়গায় অভিনয় করে সেরা অভিনেত্রীর অস্কার জিতে নেন একই নামের আরেক অভিনেত্রী এমা স্টোন। তবে ‘বিউটি এ্যান্ড দ্য বিস্ট’য়ের জন্য প্রশংসিত হয়েছে এমা’র অভিনয় আর সেই সঙ্গে প্রায় দেড় কোটি মার্কিন ডলার ঘরে তুলেছেন তিনি!

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য