উত্তর কোরিয়া নিয়ে সৃষ্ট উত্তেজনা ও দক্ষিণ চীন সাগরে নিয়ে সৃষ্ট উদ্বেগের মধ্যে দেশে তৈরি প্রথম বিমানবাহী রণতরী জলে নামালো চীন।

বুধবার সকালে ভাসানো এই বিমানবাহী রণতরীটি এর আগে ইউক্রেইন থেকে কেনা অপর বিমানবাহী রণতরীটির সঙ্গে যোগ দিবে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

২০২০ সালের আগে এটি সামরিক বাহিনীর দায়িত্বে নিয়োজিত হবে না বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বিমানবাহী রণতরীটির নকশা চীনেই করা হয়েছে এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় লিয়াওনিং প্রদেশের দালিয়ান বন্দরের শিপইয়ার্ডে এটি নির্মাণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা সিনহুয়া।

প্রাথমিকভাবে রণতরীটির নাম ‘টাইপ 001A’ রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট।

লিয়াওনিং নামের চীনের প্রথম বিমানবাহী রণতরীটি সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নে তৈরি। সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাওয়ার পর ওই রণতরীটির কাজ বন্ধ হয়ে যায়। ইউক্রেইনের একটি শিপইয়ার্ডে অর্ধসমাপ্ত অবস্থায় পরে থাকা রণতরীটি কিনে সংস্কার করে ২০১২ সালে নিজেদের বাহিনীতে কমিশন্ড করে চীনের পিপলস লিবারেশ আর্মি-নেভি।

রোববার চীনা নৌবাহিনীর ৬৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়। এর পরপরই দ্বিতীয় বিমানবাহী রণতরী জলে নামালো বাহিনীটি।

নতুন এই রণতরীটি দৈর্ঘ্যে ৩১৫ মিটার, পাশে ৭৫ মিটার। ৭০ হাজার টনের এই রণতরীটি সর্বোচ্চ ৩১ নট গতিতে এগিয়ে যেতে পারবে।

২০১৩ সালে এর নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়েছিল। মাত্র পাঁচ বছরের মধ্যেই এর নির্মাণ কাজ শেষ করা হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য