ফুলবাড়ী(দিনাজপুর)প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে গত ২৩এপ্রিল রোববার শেষ হয়েছে ন্যাশনাল হাউজ হোল্ড এর খানা জরিপ শুমারী। গত ৪এ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া খানা জরিপ শুমারী গত ২৩শে এপ্রিল শেষ হলেও তালিকাভুক্ত হতে পারে নাই উপজেলার অধিকাংশ পরিবার।

জানা গেছে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা না থাকায় পরিববারগুলো সঠিক তথ্য দিতে আগ্রহী না হওয়ায় এই কাজে ব্যাপক সমস্যা দেখা দিয়েছে। গ্রামবাসীরা জানায় হঠাৎ করে তাদের নিজের ও পরিবারের তথ্য চাওয়ায় অনেকে দ্বিধাদ্বন্ধে পড়েছে। যার ফলে নির্ধারিত সময়ে এই তালিকার কাজ শেষ হয় নাই।

খানা জরিপ কাজে নিয়োজিত কয়েকজন কর্মি জানান, একটি বাড়ী খানা জরিপের সময়সীমা ৩০ মিনিট হলেও ঐ পরিবারকে খানা জরিপ সম্পর্কে বুঝিয়ে তথ্য নিতে সময় লেগেছে  ২থেকে ৪ঘণ্টা। ফলে নির্ধারিত সময়ে খানা জরিপ সম্পন্ন করা সম্ভব হয় নাই। এছাড়া জরিপ কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিদের দক্ষতা নিয়েও অনেকে প্রশ্ন তুলেছে।

এদিকে কোন প্রকার প্রচার প্রচারণা ছাড়াই খানা জরিপ কাজ শুরু হওয়ায় বিশেষ করে পৌর এলাকাসহ আশপাশের বাসিন্দাদের মধ্যে সন্দেহের দানা বাধে। তাদের সন্দেহ এখানে খনি বাস্তবায়নের জন্যই এই জরিপ কাজ হচ্ছে কিনা তা নিয়ে অনেকে প্রশ্ন করতে দেখা যায়। আবার অনেক গ্রামবাসীরাই খানা জরিপের গুরুত্ব ও বিবেচনায় নিতে সময় লেগে যায। ফলে অধিকাংশ পরিবারেই খান জরিপের আওতায় বাদ পড়ে যায়।

গতকাল সোমবার  উপজেলা পরিসংখ্যান সমন্বয়কারী গোলাম ফারুক বলেন, উপজেলা একটি পৌরসভা ও ৭টি ইউনিয়নে জরিপকার্য পরিচালনার জন্য ২৪৯জন গননাকারী ৪৩ জন সুপারভাইজার ৯ জন আঞ্চলিক কর্মকর্তা ও একজন সমন্বয়কারী নিয়োগ করা হয়েছে। তারা প্রশিক্ষণ নিয়ে ৪ই এপ্রিল থেকে ২৩এপ্রিল পর্যন্ত একটানা কাজ করেছে। তবে তিনি বলেন, বাদ পড়াদের আজ (গতকাল) সোমবার ও মঙ্গলবার জরিপ করা হবে।

এদিকে অধিকাংশ পরিবার খানা জরিপের শুমারী থেকে বাদ পড়ায় পরবর্তীতে তারা শুমারী আসতে পারবে কিনা এ নিয়ে আশঙ্খা প্রকাশ করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য