দিনাজপুর সংবাদাতাঃ মায়াবদ্ধ জীবের দুঃখ মোচন ও পরম মুক্তি পাওয়ার একমাত্র উপায় হরিনাম কীর্তন এবং সনাতন ধর্মের একমাত্র সার সিদ্ধান্ত। বিশ্ব শান্তি কল্পে কলিযুগে জীবের মুক্তি কামনায় দিনাজপুর ফুলতলা কেন্দ্রীয় শ্মশান ঘাট ও হিন্দু সৎকার সমিতির আয়োজনে এই প্রথম বারের মত ১৬ প্রহরব্যাপী (২ দিন) শ্রী শ্রী মহানাম যজ্ঞানুষ্ঠান ও পদাবলী কীর্তন শুরু হয়েছে।

২২ এপ্রিল শনিবার হতে এই মহানাম যজ্ঞানুষ্ঠানে নামসুধা পরিবেশন করছে শ্রী শ্রী মহনলাল সম্প্রদায়-হবিগঞ্জ, সিলেট, শ্রী শ্রী পাগলনাথ সম্প্রদায়-সিরাজগঞ্জ, শ্রী শ্রী হরি মন্দির সম্প্রদায়-পাবনা, শ্রী শ্রী দেবীপুজা সম্প্রদায় (মহিলা)-ঝিনাইদহ, শ্রী শ্রী রাধামাধব সম্প্রদায়-দিনাজপুর ও শ্রী শ্রী গৌড় ভক্ত সম্প্রদায়-ডোমার, নীলফামারী।

এছাড়া ২৪ এপ্রিল রাত ৮টায় পদাবলী কীর্তন পরিবেশন করবেন রাধাগোবিন্দ লীলা কীর্তনীয়া : শ্রীমতি কৃষ্ণাদেবনাথ, বগুড়া। দিনাজপুর ফুলতলা কেন্দ্রীয় শ্মশান ঘাট ও হিন্দু সৎকার সমিতির সভাপতি অমলেন্দু ভৌমিক, সাধারণ সম্পাদক গৌড় চন্দ্র শীল, উপদেষ্টা চিত্ত ঘোষ, সুনীল কুমার চক্রবর্তী, বিধান কুমার বাসু, স্বরূপ কুমার বকসী বাচ্চু, প্রেমহরি রায়, সন্দীপ কুন্ডু, কমল শীল, এ্যাডঃ জীবন কান্তি রায়, উত্তম রায়, প্রবীর কুন্ডু, মৃদুল দে, খোগেন্দ্রনাথ শীল, চিত্ত রঞ্জন পাল, শিশির সরকার, হীরালাল সরকার, বিশ্বনাথ শীল জানায়, এই প্রথম ফুলতলা শ্মশানে ১৬ প্রহর ব্যাপী মহানাম যজ্ঞানুষ্ঠান শুরু হয়েছে।

এছাড়া এখানে নতুন করে নির্মিত হয়েছে রাধা গোবিন্দজীর মন্দির। প্রতিদিন ভক্তবৃন্দ এই মন্দিরে পুজা-অর্চণা করছে। আগামীতে শিব মন্দির এবং নাথ মন্দির নির্মানের সব রকম প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। সরকারী অনুদান এবং সমাজের বিত্তশালী হিন্দু ভক্তদের সহযোগিতা পেলে অচিরের আমরা কাজ শুরু করবো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য