দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরে গত বুধবার যমুনা অটো রাইস মিলের বয়লার বিষ্ফোরণের ঘটনায় একই পরিবারের দুই জনের মৃত্যু ও দুই জনের অবস্থা আশঙ্কা জনক থাকায় বৃদ্ধ পিতা জহিরুদ্দিন পরিবারে শেকের মাতম চলছে।

গত বুধবার ১৯ এপ্রিল দিনাজপুরের গোপালগঞ্জ এলাকায় অটো রাইস মিলের বয়লার বিস্ফরোনে ৩০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ২৩ জন কে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি কারা হয়। তাদের মধ্যে ১৬ জনের অবস্থা আশঙ্কা জনক থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগে ভর্তি কার হয়।

তাদের মধ্যে এই পরিবারের দুই ভাইয়ের মৃত্য হয়েছে এবং ছোট আরও দুই ভাই জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকায় তাদের পিতা জহিরুদ্দিনের বাড়ীতে এখন শোকের মাতম চলছে।

এই প্রতিনিধি জহিরুদ্দিনের সাথে কথা বললে কান্নাজনিত কন্ঠে তিনি বলেন, আমার ৬ ছেলের মধ্যে বড় দুটি ছেলে ২০শে এপ্রিল মকসেন আলি এবং ২১ এপ্রিল রুস্তম আলি রংপুর বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধিন আবস্থায় মারা গেছে।

আরও ছোট দুটি ছেলে বাদল (৪৫) দেলোয়ার (২৬) এখন জীবন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে রয়েছে। তাদের কি হবে এখন একমাত্র আল্লাহ্ ভরসা। জহিরুদ্দিন আরও বলেন এই ছোট দুইটি ছেলেই তার সংসারে উপার্জনকারি। তাদের কিছু হলে আমাদের পরিবারের সব কিছু শেষ হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, গত বুধবার ১৯ এপ্রিল রাইস মিলের বয়লার বিষ্ফরোনে এপর্যন্ত ৪ জনের মৃত্যু হয় বলে জানান, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান ডা. মারুফুল ইসলাম।
ছবি সংগ্রহিত

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য