মিয়ানমারের ফার্স্ট স্টেট কাউন্সেলর ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সু চি তার দেশের রাখাইন প্রদেশে সংখ্যালঘু মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর জাতিগত শুদ্ধি অভিযান চালানোর কথা অস্বীকার করেছেন। বিবিসিকে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে রাখাইন প্রদেশে ‘কিছু সমস্যা’ আছে বলে স্বীকার করলেও রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের কথা অস্বীকার করেন তিনি।

সু চি এমন সময় দিবালোকের মতো স্পষ্ট সত্য অস্বীকার করলেন যখন মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর পরিকল্পিত গণহত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা পেতে রোহিঙ্গা মুসলমানরা প্রতিবেশী দেশগুলোতে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। এ ছাড়া, জাতিসংঘসহ বহু আন্তর্জাতিক সংস্থা রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর পরিকল্পিত শুদ্ধি অভিযানের ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

কিন্তু সু চি এ সাক্ষাৎকারে বলেছেন, রাখাইনে যা হচ্ছে সেজন্য ‘জাতিগত শুদ্ধি অভিযান’ পরিভাষাটি ব্যবহার ‘অত্যন্ত কঠোর’ হয়ে যায়। বিদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা মুসলমানরা মিয়ানমারে ফিরে গেলে তাদেরকে স্বাগত জানানো হবে বলে তিনি দাবি করেন।

সু চি বলেন, রাখাইনে নানারকম শত্রুতা ও বিদ্বেষ চলছে। এমনকি মুসলমানরা মুসলমানদেরকে হত্যা করছে। কাজেই তারা যদি কর্তৃপক্ষকে সহযোগিতা করতে চায় বলে মনে করে তাহলে তারা মিয়ানমারে ফিরে আসতে পারে।

সু চি আরো বলেন, “আপনি যেভাবে বলতে চান এটি সেরকম কোনো জাতিগত শুদ্ধি অভিযান নয়। সেখানে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে বিভাজন রয়েছে এবং সরকার এই বিভাজনের সমাপ্তি টানার চেষ্টা করছে।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য