উত্তর-পূর্ব অস্ট্রেলিয়ায় ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞের স্বাক্ষর রেখে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ডেবির অবশিষ্ট অংশটি নিউজিল্যান্ডে গিয়ে হাজির হয়েছে।

এর প্রভাবে মঙ্গলবার দ্বীপদেশটিতে ব্যাপক বৃষ্টিপাত হতে থাকায় মহাসড়কগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে এবং বৃষ্টিপাতে বড় ধরনের একটি ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

নভেম্বরে নিউজিল্যান্ডে যে অংশে বড় ধরনের একটি ভূমিকম্প হয়েছিল সেই অংশের কয়েকটি এলাকায়ই ঝড়টি আঘাত হেনেছে।

এর প্রভাবে আগামী কয়েকদিন ভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা জারি করেছে দেশটির আবহাওয়া কর্তৃপক্ষ। কোনো কোনো এলাকায় আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে তিন মাসের সমপরিমাণ বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে সতর্ক করেছে তারা।

জোরালো সতর্ক বার্তায় আবহাওয়া দপ্তর বলেছে, “উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বৃষ্টিপাত হতে পারে। জনগণকে দ্রুত বাড়তে থাকা নদী, জলপ্রবাহগুলোর দিকে নজর রাখার ও বন্যা ও ভূমিধসের বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।”

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে দেশটির নর্থ আইল্যান্ডের ওহানগানুই শহরে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে এমন পূর্বাভাসে বাধ্যতামূলকভাবে ঘরবাড়ি ছাড়তে হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন শহরটির মেয়র হামিশ ম্যাকডৌয়াল।

“আপনাদের মূল্যবান জিনিপত্র রক্ষায় প্রায় ২০ ঘন্টা সময় পাবো আমরা, আপনাদের বয়স্ক প্রতিবেশীদের দিকে নজর রাখুন,” এক বিবৃতিতে বলেন তিনি।

আবহাওয়া কর্মকর্তারা পুরো নর্থ আইল্যান্ড এবং সাউথ আইল্যান্ডের উত্তর অংশে ব্যাপক বৃষ্টিপাত ও ঝড়ের পূর্বাভাস দিয়েছেন।

নভেম্বরে সংঘটিত সাত দশমিক আট মাত্রার ভূমিকম্পের উপকেন্দ্র কাইকৌরা যাওয়ার প্রধান সড়ক মঙ্গলবার চালু করার কয়েক ঘন্টার মধ্যে ফের বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ভূমিকম্পে ২০টি স্থানে ভূমিধসে ক্ষতিগ্রস্ত এই মহাসড়কটি কয়েক সপ্তাহ ধরে বন্ধ রাখা হয়েছিল।

বৃষ্টিতে নতুন একটি ভূমিধসের ঘটনায় দেশটির আরেকটি প্রধান মহাসড়কও বন্ধ হয়ে গেছে।

অন্যান্য সড়কগুলো বন্ধ করে দিয়ে নিউজিল্যান্ডের বেসামরিক প্রতিরক্ষা বাহিনীকে যেকোনো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। অন্তত একটি স্কুল ছুটি দিয়ে খালি করে ফেলা হয়েছে বলে খবর হয়েছে।

গত সপ্তাহে চার ক্যাটাগরির ঘূর্ণিঝড় ডেবি অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড উপকূলে আঘাত হানে। এর তাণ্ডবে কুইন্সল্যান্ডের গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ উপকূলের পর্যটন রিসোর্টগুলো ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়, ব্যাপক এলাকা বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে ও রাজ্যের কয়লা খনিগুলো বন্ধ হয়ে যায়।

ডেবির প্রভাবে ব্যাপক বৃষ্টিপাতের পর কুইন্সল্যান্ড ও আশপাশের এলাকাগুলোতে বন্যা দেখা দেয়।

মঙ্গলবার নিউ সাউথ ওয়েলস রাজ্যে বন্যার পানিতে ডুবে থাকা একটি গাড়ি থেকে তিনটি লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এদের নিয়ে ডেবির তাণ্ডবে অস্ট্রেলিয়ায় নিহতের সংখ্যা ছয়ে দাঁড়িয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য