আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধা-ধর্মপুর-সুন্দরগঞ্জ উপ-মহাসড়কের দারিয়াপুর বন্দরটি এখন কাঁদার বন্দরে পরিনত হয়েছে। ফলে বন্দরের ব্যস্ততম রাস্তাটি দিয়ে যান চলাচলসহ মানুষজন চলাচলেও হচ্ছে মাহাবিড়ম্বনা।

বর্তমানে রাস্তাটিতে হাঁটু কাদায় পরিণত হওয়ায় জন সাধারণ রাস্তার দুই ধার দিয়ে চলাচল করছে। কেউ কেউ আবার দোকান পাটের পাশের বাড়ান্দা দিয়ে চলা চল করছে। এতে করে প্রতিনিয়ত দোকানিদের সাথে পথচারীদের বাকবিতন্ডা লেগেই থাকছে।

অপরদিকে যানবাহন গুলো কাঁদার মধ্যদিয়ে চলাচল করলেও তাদের মধ্যে রয়েছে দুর্ঘটনার আতঙ্ক। তবে মালবাহী ভ্যান চালকদের এ আতঙ্ক আরও মারাত্মক। ভ্যান চালকরা শরীরের শক্তি খাটিয়ে মাল বোঝাই ভ্যান কাঁদার মধ্যদিয়ে টেনে নিয়ে গেলেও দুর্ঘটনা তাদের পিছু ছাড়ছেনা।

এমনি এক দুর্ঘটনার কবলে পড়া ভ্যান চালক আইয়ুব আলী জানান, শনিবার ভ্যানে একটি তেলের ড্রাম গাইবান্ধা থেকে ধর্মপুর নিয়ে আসার পথে দারিয়াপুর নামক স্থানে কাঁদায় পড়ে ভ্যানের সামনের চাকা ভেঙ্গে যায়। সেই সাথে অন্য দুই চাকারও রিং বাকা হয়ে পড়ে। এখন বর্তমানে টাকার অভাবে ভ্যানটি সারিয়ে নিতে করতে পারছি না।

দারিয়াপুর জয়নাল আবেদীন প্রিপারেটরী স্কুলের শিক্ষার্থী মায়িশা নিহা জানান, কাঁদা রাস্তা দিয়ে স্কুলে যেতে আর ভালো লাগেনা। তাই আমরা রাস্তাটির সংস্কার চাই।

দারিয়াপুর কিয়ামত উল্যাহ মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে স্কুল শিক্ষক সাদেকুল ইসলাম জানান, অপরিকল্পিত বন্দর ব্যবস্থা গড়ে ওঠার ফলে বৃষ্টির পানি রাস্তা থেকে নেমে যেতে পারছেনা। এতে রাস্তায় পানি জমে থাকছে। আর এই পানিই পরবর্তীতে কাঁদার সৃষ্টি করছে। এজন্য প্রয়োজন সুপরিকল্পিত বন্দর ব্যবস্থা ও বন্দরে ড্রেনেজ ব্যবস্থা নির্মাণ করা।

দারিয়াপুরবাসির প্রাণে দাবী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বন্দরটির উন্নয়নে সুপরিকল্পিত ব্যবস্থা গ্রহণ করে বন্দরবাসিকে এই দুর্ভোগের হাত থেকে রক্ষা করবেন এমনটাই প্রত্যাশ সকলের।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য