মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর থেকে ॥ দিনাজপুর সদরে এক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর ধর্ষক স্ব-পরিবারে বাড়িতে তালা ঝুলিয়ে পালিয়েছে।

পুলিশ ঘটনা তদন্ত করে পুলিশ নিজ দায়িত্বে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। কিন্তু এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান কথা বলতে রাজি হননি।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, দিনাজপুর সদর উপজেলার দরবারপুর ডাঙ্গাপাড়া এলাকায় ১৪ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী কিশোরীকে বাড়িতে রেখে কাজে যান তার মা। এই সুযোগে প্রতিবেশী আজাহার আলী মেয়েটিকে ফুসলিয়ে নিজ বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়েটির গোঙ্গানির শব্দ পেয়ে এলাকাবাসী বিষয়টি জানতে পারে। এক পর্যায়ে মেয়েটিকে বাড়ির ভেতর থেকে বের করা হয়।

কিশোরীর মা জানান, ঘটনা শুনে তিনি বাড়িতে এসে দেখেন মেয়ে বাড়িতে চৌকির ওপর বসে আছে। তিনি মেয়েকে ধর্ষণ করার বিষয়টি অবগত হন। এ সময় ধর্ষক আজাহার আলী ও তার স্ত্রী সাহেরা খাতুন ওই কিশোরীর মায়ের কাছে এসে ঘটনা জানাজানি না করার জন্য অনুরোধ করে এবং একশ টাকা দেয় চিকিৎসার জন্য। কিন্তু তিনি ( মেয়েটির মা) টাকা নিতে অস্বীকৃতি জানান।

কিশোরীর মা জানান, তার স্বামী কুমিল্লায় অটোবাইক চালান। তাকে খবর দেয়া হয়েছে। তিনি বাড়িতে আসলেই এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন তারা। এলাকবাসী অভিযুক্ত ধর্ষকের শাস্তি দাবী জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ২নং সুন্দরবন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অশোক কুমার রায় ঘটনা তিনি জানেন বলে জানান। তবে এ ব্যাপারে কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

অভিযুক্ত আজাহার আলীর বাড়িতে গেলে বাড়ীর গেটে তালা ঝুলছে দেখা গেছে। প্রতিবেশীরা জানান, ঘটনার পরপরই আজাহার তার পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে পালিয়ে গেছেন।

দিনাজপুর কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. ফখরুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি জানা ছিল না। সাংবাদিকদের মাধ্যমে খবর পেয়ে বিষয়টি তদন্ত শুরু হয়েছে। আমরা  ঘটনা তদন্ত করে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে নিজ দায়িত্বে মামলা করব। অভিযুক্তকে গ্রেফতারের পক্রিয়া চলছে বলে তিনি জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য