কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে এখন বিলুপ্তির পথে আদি যুগের কাঠের তৈরী নেশার দ্রব্য  হুক্কা। কোন এক সময় মানুষ বিড়ি সিগারেটের বদলে শুকনা তামাক পাতা ও কয়লা হুক্কায়  ভরিয়ে আগুনসহ নেশা কমানোর জন্য সিগারেটের মতো করে চোখ বন্ধ করে হুক্কা টানতো।

বাড়ির উঠানে ,টংএ বসে, নাখারি ঘরে, হাট-বাজারে গান বাজনা কিংবা গল্পের আসর বসিয়ে হুক্কা টানতো আর মজার আসর জমাতো এলাকার মানুষজন। সাথে থাকতো পান বাটায় পান। এমনকী রাজ পরিবারেও এটি ছিলো চোখে পড়ার মতো। কিন্তু আধুনিকতার যাতকলে এই হুক্কার দেখা মেলে না এখন।

এখন বিভিন্ন প্রকার দামী সিগারেট মানুষের বিলাসিতার প্রধান নেশা। যা মানবঘাতি ক্যান্সার আক্রান্তে মৃত্যুমুখে ঠেলে দেয় নেশা পানকারীকে। এলাকার মনু শেখ (৭২) বলেন আমরা আগে নেশা হিসেরব হুক্কা টানতাম গল্পে মজে যেতাম এখন আর হুক্কা পাওয়া যায় না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য