গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা-১( সুন্দরগঞ্জ) আসনে  উপ নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার পর  মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌঁড়ঝাপ শুরু হয়েছে। নিহত সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের পরিবারের কেউ প্রার্থী হন কিনা, সে দিকে তাকিয়ে আছেন সকলেই। তবে নিহত সংসদ সদস্য লিটনের স্ত্রী সৈয়দা খুরশিদা জাহান স্মৃতি অথবা তার বড় বোন আফরোজা বারী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে পারেন বলে এলাকায় ব্যাপক প্রচারণা রয়েছে।

রোববার সুন্দরগঞ্জ আসনে উপনির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করার পর পরেই দলীয় ফোরামসহ বিভিন্ন মহলে আলোচনা শুরু করেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। নিহত সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের স্ত্রী খুরশিদ জাহান স্মৃতি বা পরিবারের অন্য কেউ প্রার্থী হন কিনা সকলের দৃষ্টি এখন সে দিকে।

এই আসনে যারা মনোনয়ন প্রত্যাশী- এরশাদের জাতীয় পার্টির ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, সাবেক সংসদ সদস্য কর্ণেল (অবঃ) ডা. আব্দুল কাদের খান ও সর্দার মোস্তফা মোহসিন, জাতীয় পার্টি জেপি’র সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াহেদুজ্জামান সরকার বাদশা, জাসদের এ্যাড. মোহাম্মদ আলী, মুন্সী আমিনুল ইসলাম সাজু ও মোসলেম মাষ্টার, আওয়ামী লীগের বর্তমান পৌর মেয়র আব্দুল্যাহ আল মামুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আলম রেজা, ইঞ্জিনিয়ার ইকবাল হোসেন, সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজা বেগম কাকলী, সুন্দরগঞ্জ ডি. ডব্লিউ ডিগ্রি কলেজের উপাধ্যক্ষ এম. এ হান্নান সরকার।

আওয়ামী লীগ থেকে শেষ পর্যন্ত কে মনোনয়ন পাবেন তা নির্ভর করছে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের উপর। তবে নিহত সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের স্ত্রী জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী সৈয়দা খুরশিদ জাহান স্মৃতি সোমবার মোবাইল ফোনে বলেন, ‘আমি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত, তবে প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নির্বাচন করার নির্দেশ দিলে, তা আমাকে মেনে নিতে হবে’।

অপর একটি সূত্রে জানা গেছে, নিহত এমপি লিটনের বড় বোন আফরোজা বারী এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে আগ্রহী। তবে এলাকায় ব্যাপক প্রচারণা রয়েছে সৈয়দা খুরশিদ জাহান স্মৃতি বা আফরোজা বারী শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে পারেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গত ২৯ ডিসেম্বর সুন্দরগঞ্জে নিহত এমপি লিটনের স্মরণে নাগরিক শোক জনসভায় বক্তৃতাকালে দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, উপ নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে কাড়াকাড়ি করবেন না। সুন্দরগঞ্জের মানুষ যাকে চাইবে, দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা তাকেই মনোনয়ন দিবেন। এ নিয়ে দলের মধ্যে কোন কোলাহল সৃষ্টি না করার আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

সুন্দরগঞ্জ আসনে উপ নির্বাচনে বিএনপি কোন প্রার্থী দিবে কিনা, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে কারো নামও শোনা যায়নি। সুন্দরগঞ্জের বিএনপি ও সমমনা দলের উলে¬খযোগ্য নেতারাই এখন লোকচক্ষুর আড়ালে রয়েছেন। তবে বিএনপি’র জেলা পর্যায়ের নেতা শহীদুজ্জামান শহীদ জানান, বর্তমান সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন না করার দলীয় সিদ্ধান্ত রয়েছে।

জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জেলা শাখার সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুর রশিদ সরকার বলেন, পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ গত ৩০ ডিসেম্বর সুন্দরগঞ্জে জনসভা করে উপ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারীকে পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন। সে অনুযায়ী জাতীয় পার্টি এলাকায় কাজ করছে। খুব শিঘ্রই আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরু হবে। তিনি বলেন, সুন্দরগঞ্জ বরাবরই জাতীয় পার্টির ঘাঁটি। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে বিপুল ভোটে জাতীয় পার্টির প্রার্থী বিজয়ী হবে বলে তিনি দৃঢ় আশাবাদী।

গাইবান্ধা জেলা জাসদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ শরিফুল ইসলাম বাবলু বলেন, আমরা চাই সুন্দরগঞ্জে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক। ১৪ দলীয় জোট থেকে জাসদের প্রার্থীকে মনোনয়ন দিলে আওয়ামী লীগের চেয়ে ভালো করবে জাসদ প্রার্থী।

জাতীয় পার্টির( মঞ্জু) সম্ভাব্য প্রার্থী সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াহেদুজ্জামান সরকার বাদশা বলেন, তিনি এমপি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলেন; তিনি সব সময় সুন্দরগঞ্জের তৃণমূল মানুষের পাশে আছেন। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জনগণ তাকেই বিজয়ী করবেন বলে এই সাবেক সংসদ সদস্য আশা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, সুন্দরগঞ্জ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন গত ৩১ ডিসেম্বর দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত হলে আসনটি শূন্য হয়। বোরবার উপনির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত তফশিল অনুযায়ী  রিটার্নিং অফিসারের কাছে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ তারিখ ১৯ ফেব্র“য়ারি। মনোনয়ন পত্র বাছাইয়ের তারিখ ২২ ফেব্র“য়ারি। প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১ মার্চ। ভোট গ্রহণ ২২ মার্চ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য