দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে চলতি রবিশস্য মৌসুমে আলুর বাম্পার  ফলনের সম্ভাবনায় আলু চাষীরা কোমর বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে। উপজেলার ১২ ইউনিয়নের চাষযোগ্য জমিতে মাঠেমাঠে এখন শুধু আলু গাছের সবুজ রংয়ের সমরোহ।

এ বছর কোন ধরনের প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হওয়ায় রোপা-আমন ধান কাটার সাথে সাথে মাঠে রবিশস্যের উপযোগী চাষযোগ্য জমিতে কৃষকরা আগাম জাতের আলু চাষে ব্যস্ত হয়ে উঠে। সরকারী পর্যায় থেকে কৃষকদের মাঝে কৃষি উপকরণসহ রাসায়নিক সার বিনামূল্যে যথাসময়ে বিতরণ করায় এই এলাকার কৃষকদের আগাম জাতের আলু লাগানো সম্ভব হয়েছে।

জানা গেছে, চলতি রবিশস্য মৌসুমে উপজেলার ১২ ইউনিয়নে ২ হাজার ৯ শত ৫০’হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও কৃষকরা আলু চাষ করেছে ৩ হাজার  ২ শত ২০ হেক্টর জমিতে। যার ফলনের মাত্রা ৬০ হাজার মেট্রিক টন। চলতি রবিশস্য মৌসুমে রবিশস্যের পাশাপাশি আলুর চাষ বেশী হয়েছে। গ্রামীণ জনপদের প্রান্তিক কৃষকরা এবার উপসী, ও দেশী জাতের আলু লাগিয়েছে।

যথাসময়ে আলু ঘরে তুলতে পারলে এবং বাজারের চাহিদা ও মূল্য ভাল থাকলে আলু চাষে কৃষকদের আগ্রহ আরো বৃদ্ধি পাবে বলে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা মনে করছেন। তবে ঘনকুয়াশা আর হিমেল বাতাসের কারণে আলু চাষিরা কিছুটা আতংকে রয়েছে।

আগামী ইরি-বোরো ধান উৎপাদনের প্রস্তুতি হিসেবে প্রান্তিক  চাষিরা কিছুটা বাধ্য হয়েই অন্যের জমি বর্গা নিয়ে আলু, সরিষা, গম ও ভুট্টা চাষে অতি আগ্রহী হয়ে উঠছে। উপজেলার আব্দুলপুর, অমরপুর,ু ভিয়াইল, সাইতাড়া, ফতেজংপুর, সাতনালা, তেতুঁলিয়া, আউলিয়াপুকুর, ইসবপুর, আলোকডিহি ও পুনন্ট্রি ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি আলু চাষ হয়েছে বলে কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে।

উপজেলার সাতনালা গ্রামের কৃষক মোঃ জাকির হোসেন জানান, আমি এবছর প্রায় ২ বিঘা জমিতে আলুর চাষ করেছি। কৃষি অফিসের পরামর্শক্রমে ভাল জাতের দেশী আলুর বীজ কিনে জমিতে লাগিয়েছি। এ পর্যন্ত আলু গাছের গঠন দেখে মনে হচ্ছে আশানুরুপ ফলন পাব। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মাহমুদুল হাসান জানান, বিগত বছরের তুলনায় চিরিরবন্দরে এবার আলুর বাম্পার ফলনের সম্ভবনা রয়েছে।

যথাসময়ে জমি চাষযোগ্য হওয়ায় এলাকার কৃষকরা সুযোগ বুঝে আলু লাগিয়েছে। তিনি আরো জানান, কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ সার্বক্ষণিকভাবে আলু চাষীদের চাষাবাদ ও সেচ সম্পর্কে পরামর্শ দিচ্ছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য