ইরাক ও সিরিয়ায় ২০১৪ সাল থেকে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর পর যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোটে হামলায় এ পর্যন্ত ১৮৮ জন সাধারণ মানুষ নিহত হয়েছেন।

সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানানো হয়।

জঙ্গিগোষ্ঠীটির বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর সময় বেসামরিক হতাহতের ঘটনা মূল্যায়নকারী দ্য কম্বাইন্ড জয়েন্ট টাস্কফোর্স বলছে, তারা এখনো ২০১৫ সালের একটি এবং ২০১৬ সালের চারটি অভিযানে অনভিপ্রেত বেসামরিক হতাহতের ঘটনা মূল্যায়ন করছে।

মার্কিন সামরিক কর্মকর্তারা বেসামরিক মানুষ নিহতের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

তবে বাইরের গোষ্ঠীগুলোর দেওয়া হতাহতের পরিসংখ্যান থেকে জোটের দেওয়া হিসাব অনেক কম।

যেমন, ওই অঞ্চলে আন্তর্জাতিক বিমান হামলায় বেসামরিক মানুষ নিহতের ঘটনা পর্যবেক্ষণকারী এয়ার ওয়ার্সের হিসাবে ওই সময়পর্বে ইরাক ও সিরিয়ায় ২,১০০ জন সাধারণ মানুষ নিহত হয়েছেন।

টাস্কফোর্সের দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “যদিও জোট বাহিনী সামরিক লক্ষ্যে হামলা চালানোর ক্ষেত্রে অসাধারণ সামর্থে্যর পরিচয় দিয়েছে। সাধারণ মানুষ হতাহতের সংখ্যা ন্যূনতম রাখার সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়েছে। কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে হতাহতের ঘটনা এড়ানো সম্ভব হয়নি।”

যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক তথ্যের সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন জোট গেল বছরের ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ইরাক ও সিরিয়ায় মোট ১৭,০০৫টি বিমান হামলা পরিচালনা করেছে।

এরমধ্যে ১০,৭৩৮টি ইরাকে এবং ৬,২৬৭টি হামলা সিরিয়ায় চালানো হয়েছে।

২০১৪ সাল থেকে ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় হয়েছে বলে সামরিক তথ্যের বরাতে জানা গেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য