রংপুরে পুলিশ-জেএমবি সংঘর্ষে ৪ পুলিশ আহতরংপুরে নাশকতা সৃষ্টির পরিকল্পনায় গোপন বৈঠক করার সময় আস্তানায় অভিযান চালিয়ে জামাআতুল মুজাহেদীন বাংলাদেশের  (জেএমবি) চার সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জেএমবি সদস্যরা ককটেল নিক্ষেপ করলে চার পুলিশ সদস্য আহত হন।

ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে। শনিবার রাত আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার চন্দনপাট ইউনিয়নের সাহাবাজপুর গ্রামে এ অভিযান চালায় পুলিশ।

আটকরা হলেন, পীরগাছা উপজেলার দুর্গাচরণ গ্রামের মৃত জয়নুদ্দিনের ছেলে বেলাল হোসেন (৪৬), একই উপজেলার পশুয়া টাঙ্গাইল পাড়া গ্রামের হবিবর রহমানের ছেলে এরশাদ আলম (২৮) ও মনতাজুর রহমানের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২৩) এবং পশুয়া খাঁপাড়া গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে আল-আমিন (২০)।

পুলিশ জানায়, ওই এলাকার চাপলার দোলাস্থ একটি পরিত্যাক্ত ইটভাটার কাছে গোপন আস্তানায় বসে বৈঠক করছিল জেএমবির কয়েকজন সদস্য।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে রাত আড়াইটার দিকে পুলিশ অভিযান শুরু করলে জেএমবি সদস্যরা পুলিশকে লক্ষ্য করে পরপর কয়েকটি ককটেল নিক্ষেপ করে।

এতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাসুদ করিম, কনস্টেবল আসাদ, কোতয়ালী থানার কনস্টেবল কুতুবসহ চারজন আহত হন।

পুলিশও আত্মরক্ষার্থে এসময় প্রায় ৬ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশীয় পিস্তলসহ দুইটি চাপাতি, একটি চাইনীজ কুড়াল ও তিনটি ককটেল উদ্ধার করে পুলিশ। আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল-এ) আতাউর রহমান জানান, আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গতঃ রংপুরে চাঞ্চল্যকর জাপানী নাগরিক হোসি কুনিও ও মাজারের খাদেম রহতম আলী হত্যাসহ বাহাই নেতা রুহুল আমিনকে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আসামী জেএমবির রংপুর অঞ্চলের কমান্ডার মাসুদ রানা ও সদস্য ইছাহাক আলীর বাড়িও পীরগাছার পশুয়া টাঙ্গাইল পাড়া গ্রামে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য