Kaharol Mapকাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ কাহারোলে সন্তানকে দেখতে গিয়ে শশুর বাড়িতে জামাই আটক ॥ ২ চেয়ারম্যানের সার্বিক সহযোগিতায় উদ্ধার। দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার ৩নং মুকুন্দপুর ইউনিয়নের পানিশাইল গ্রামের আব্দুর রহমানের পুত্র মোঃ আনোয়ার হোসেন (২৩) গত ২৮ অক্টোবর’১৬ বিকাল আনুমানিক ৩ টার সময় ও পার্শ্ববতী চিরিরবন্দর উপজেলার রানীরবন্দর (মাছুয়াপাড়া) গ্রামে আনোয়ার হোসেনের স্ত্রী মোছাঃ আলিফা বেগম তার স্বামীকে সদ্যনবজাতক ছেলে সন্তান কে দেখার জন্য মোবাইলে তার স্ত্রী ডেকে নিয়ে গিয়ে শশুর বাড়ির লোকজন আনোয়ার হোসেন কে আটক করে রাখে এবং প্রাণ নাশের হুমকি-ধামকী ও শারিরীক নির্যাতন করেছেন বলে এক লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিষয়টি রাতে মোবাইলের মাধ্যমে আনোয়ার হোসেনের পিতা আব্দুর রহমান কে অবগত করলে আব্দুর রহমান তার ছেলে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে প্রথমে কাহারোল উপজেলার ৩নং মুকুন্দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ,কে,এম ফারুক কে জানালে তাৎক্ষনিক ভাবে ইউপি চেয়ারম্যান এ,কে,এম ফারুক চিরিরবন্দর উপজেলার নসরতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম কে জানায়।

সংশ্লিষ্ট নসরতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে গিয়ে আনোয়ার হোসেন কে উদ্ধার করে তার ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে নিয়ে এসে ঘটনার দিন রাতেই ৩নং মুকুন্দপুর ইউপি’র ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ গোলাম রব্বানীর নিকট হস্তান্তর করে।

এদিকে গত ২৯ অক্টোবর’১৬ আনোয়ার হোসেনের পিতা মোঃ আব্দুর রহমান তার ছেলেকে শশুর বাড়ির লোকজন কর্তৃক নির্যাতনের অভিযোগ করে কাহারোল প্রেস ক্লাবের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ পেশ করেন। লিখিত অভিযোগের পরি-প্রেক্ষিতে গত ৩০ অক্টোবর’১৬ আমাদের প্রতিনিধি ঘটনাস্থল রানীরবন্দর (মাছুয়াপাড়া) গ্রামে আনোয়ার হোসেনের শশুর বাড়ি যায় এবং বিষয়টি আরিফা ও তার মায়ের সাথে কথা হলে তারা নির্যাতন ও আটকের ঘটনাটি অস্বীকার করেন।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট নসরতপুর ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কয়েকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করার কারণে ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামের বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে রানীর বন্দর (মাছুয়াপাড়া) এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদেরকে ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে তারা একটু ঘটনার বিষয়টি শুনেছেন বলে অনেকেই জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য