‘আমেরিকান ড্রিম’ চলচ্চিত্রে পপি 4-চলচ্চিত্রের গুণী অভিনেত্রী পপি বেশ কয়েক মাস ধরেই নীরব। অনেক সময় তাকে ফোন করেও পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ করেছেন বেশকিছু নির্মাতা। আর বিভিন্ন কারণে এসব ফোন এড়িয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন পপি। তিনি বলেন, যেসব কাজ করতে চাই সেসবের প্রস্তাব আসে না।

ফোন রিসিভ করে অযথা উল্টা-পাল্টা ছবির প্রস্তাব শুনতে ভালো লাগে না। আমি চলচ্চিত্রের  মানুষ। দীর্ঘদিন ধরে চলচ্চিত্রে কাজ করছি। এর প্রতি এক দুর্দান্ত টান অন্তরে বহমান সব সময়। তাই অন্তরালে আর থাকতে চাই না। তিনি আরো বলেন, কিছুদিন আগে আমার অভিনীত নারগিস আক্তারের পরিচালনায় ‘পৌষ মাসের পিরিত’ ছবিটি মুক্তি পায়। দেরিতে মুক্তি পেলেও ছবিটি দেখার পর অনেকেই ভালো বলেছেন।

বলতে গেলে এক কথায় এ ছবিটি মুক্তির পর খুব সাড়াও পেয়েছি আমি। শুনেছি নিউ ইয়র্কেও ছবিটি বেশ প্রশংসিত হয়েছে। এদিকে অচিরেই পপির নতুন একটি ছবি সেন্সরে জমা পড়বে। নাম ‘সোনাবন্ধু’। ত্রিভুজ প্রেমের গল্প নিয়ে মাহবুবা শাহরীনের ‘হতাই’ উপন্যাস অবলম্বনে এ ছবির কাজ শেষ হয়েছে বলে জানালেন তিনি।

এ ছবিতে তার সহশিল্পী হিসেবে কাজ করেছেন ডিএ তায়েব ও পরীমনি। তপন বসাকের প্রযোজনা ও শুভ টেলিফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত ‘সোনাবন্ধু’ চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন জাহাঙ্গীর আলম সুমন। ছবিটি নিয়ে পপি বলেন, এই ছবির কাজটা কিছুদিন আগে শেষ হয়েছে। আর অল্প কিছু কাজ হলেই ছবিটি সেন্সরে জমা পড়বে।

পপি একটা সময় শোবিজ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিয়মিত অংশ নিতেন। আজকাল আর তেমন একটা যান না সেসবে। সবশেষ ৮ই অক্টোবর বসুন্ধরা সিটিতে স্টার সিনেপ্লেক্সের যুগপূর্তি অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখার পাশাপাশি কণ্ঠশিল্পী দিনাত জাহান মুন্নীর সঙ্গে গানে কণ্ঠ মিলিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে  তিনি বলেন, ওই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে গিয়েছিলাম।

মঞ্চে তখন দেশীয় চলচ্চিত্রের বিভিন্ন সময়ের গান গেয়ে শোনাচ্ছিলেন মুন্নী। একপর্যায়ে আমাকে ডাকা হয়। আমি মুন্নীর সঙ্গে গানে কণ্ঠ মেলাই।  সেসঙ্গে স্টার সিনেপ্লেক্সের মতো মানসম্পন্ন সিনেমা হল আরো বেশি হোক এই শুভকামনা জানিয়েছি। এদিকে পপি অভিনীত বেশকিছু ছবি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এগুলো হলো ‘শর্টকাটে বড়লোক’, ‘লীলামন্থন’, ‘দুই ভাইয়ের যুদ্ধ’ ও ‘জীবন যন্ত্রণা’।

কাজ ছাড়া থাকতে চান না পপি। আবারও চলচ্চিত্রেই সরব হতে চান। ছোটপর্দায় মাঝে মধ্যে তাকে দেখা গেলেও তার মনজুড়ে রয়েছে বড়পর্দা। এসব বিষয়ে পপি খুব পরিষ্কারভাবে বলেন, ঈদের বিশেষ অনুষ্ঠান বা টেলিছবিতে মাঝে কাজ করেছি। এখন তাও করছি না। এযাবৎ পথচলার বেশিরভাগ সময় চলচ্চিত্রে কাজ করেছি তাই এটা নিয়েই থাকতে চাই। আমার মুক্তির অপেক্ষায় থাকা বেশিরভাগ ছবির কাজ শেষ।

কোনো না কোনো কারণে ভালো এই ছবিগুলো অনেকদিন ধরেই মুক্তি পাচ্ছে না। আর্টিস্টের কাজ ঠিকমতো চরিত্রের রূপায়ণ করা বা অভিনয় করা। এসব ছবিতে আমি তাই করার চেষ্টা করেছি। ছবিগুলো কেন  মুক্তি পাচ্ছে না সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট পরিচালক বা প্রযোজকরাই ভালো বলতে পারবেন। তবে আমি নিশ্চিত, এই ছবিগুলো দর্শকরা দেখলে অবশ্যই তাদের ভালো লাগবে। নতুন এক পপিকে আবিষ্কার করবেন তারা। আমি নিজেও এই ছবিগুলো মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য