02 পীরগঞ্জে অর্থাভাবে কিডনী সংযোজন হচ্ছেনা মুস্তাফিজ’রমুদিদোকান করে জীবিকা নির্বাহকারী ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলা শহরের মৃত্যু পথযাত্রী অসহায় মুস্তাফিজুর রহমানের সম্পুর্ন নষ্ট হয়ে যাওয়া কিডনী দুটি সংযোজন খরচের অভাবে সংযোজন করা যাচ্ছে না। প্রায় ১ বছর ধরে কিডনী ডায়ালাইসিসের খরচ চালাতে গিয়ে সহায়-সম্বল হারিয়ে হাসপাতাল ছেড়ে নিজ বাড়িতেই যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে এই অসহায় ব্যাক্তি। নিজের জীবন বাঁচাতে  সে সমাজের দানশীল বিত্তবানদের কাছে সহায়তা কামনা করেছে।

পীরগঞ্জ শহরের গুয়াগাঁও গ্রামের আজিজুর রহমানের পুত্র মুস্তাফিজুর রহমান(৩২) ছোট্ট একটি মুদি দোকান করে দুই সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে কোনোরকমে জীবনযাপন করে আসছিল। তার বড় মেয়ে স্থানীয় পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে নবম শ্রেনী ও ছোট ছেলে সপ্তম শ্রেনীর ছাত্র।

অভাবের সংসারে হঠাৎ করে প্রায় ১বছর আগে অসুস্থ হয়ে পরেন গৃহকর্তা মুস্তাফিজুর রহমান। দিনাজপুর ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানা যায়, তার দু’টি কিডনী সম্পূর্নরুপে নষ্ট হয়ে গেছে। তারপর তাকে ঢাকাস্থ মিরপুর কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতাল এন্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউট এ ভর্তি করা হলে বিশেষজ্ঞ  চিকিৎসক ডাঃ হারুন-উর-রশিদ ও ডাঃ মুজ্বিুল হকের পরামর্শে শুরু করা হয় কিডনী ডায়ালাইসিস।

সপ্তাহে ২/৩ বার করে কিডনী ডায়ালাইসিসের খরচ যোগাতে গিয়ে মুস্তাফিজের পরিবার সহায়সম্বল হাড়িয়ে ফেলেছেন ইতিমধ্যে। বর্তমানে সে চিকিৎসাবিহীন অবস্থায় শারিরিক মানষিক যন্ত্রনা নিয়ে মুমূর্ষূ অবস্থায় দিনাতিপাত করছেন।

তার পরিবারের সদস্যরা নিজেদের কিডনি দান করে তাকে সুস্থ করার প্রত্যয় নিলেও শুধুমাত্র কিডনি সংযোজন বাবদ ৫ লক্ষাধিক টাকা জোগাড় করতে না পারায় এই অসহায় মানুষটি প্রতিনিয়ত: মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছে। তাকে বাচাতে পরিবারের লোকজন সমাজের দানশীল বিত্তবান ব্যাক্তিদের আন্তরিক সহযোগীতা কামনা করেছেন। সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা, বড় ভাই মো. আজহারুল ইসলাম, সঞ্চয়ী হিসাব নং ৬২০৪, অগ্রণী ব্যাংক, পীরগঞ্জ শাখা,ঠাকুরগাঁও। বিকাশ নং ০১৭৩৮-২৮০৪৪৫।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য