সু চির রোহিঙ্গা প্যানেলের বিরুদ্ধে বিক্ষোভমিয়ানমারের সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধদের সঙ্গে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের সংঘাতের সমাধান খুঁজে পেতে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানকে প্রধান করে গঠন করা পরামর্শক কমিশনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেছে দেশটির শত শত মানুষ।

মঙ্গলবার আনানসহ কমিশনের নয় সদস্য দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় রাখাইন রাজ্যে দুই দিনের এক সফরের শুরুতেই বিক্ষোভের মুখে পড়েন।  মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক সংস্কারের পথে রোহিঙ্গা সমস্যাটি একটি কালো ছায়া হয়ে আছে। এই সমস্যার কারণে মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসির (এনএলডি) প্রধান নেতা সু চির ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছিল, মানবাধিকারের প্রতি তার প্রতিশ্রুতি নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে কথা উঠেছে। গেল বছর মিয়ানমারের ইতিহাসে প্রথম অবাধ নির্বাচনে বিশাল জয় পাওয়া এনএলডি-র জন্য এই ইস্যুটি একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দিয়েছে। সমস্যা সমাধানের পথ খুঁজতে বানকে প্রধান করে নয় সদস্যের ওই কমিশন গঠন করেছেন সু চি।

রাখাইন রাজ্যের রাজধানী সিত্তওয়ি বিমানবন্দরের বাইরে কয়েক ডজন পুলিশের পেছনে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে স্থানীয় বাসিন্দা ও বৌদ্ধ ভিক্ষুদের দেখা গেছে। বৃষ্টি উপেক্ষা করেই তারা বিক্ষোভ করছিলেন। কমিশনকে ‘বিদেশি হস্তক্ষেপে পক্ষপাতদুষ্ট’ বলে অভিহিত করছেন তারা। বিমানবন্দরে আনানদের বহনকারী বিমানটি নামার সঙ্গে সঙ্গেই বিক্ষোভকারীদের চিৎকার বেড়ে যায়। তারা কমিশনের গাড়িবহরের পেছনে পেছনে শহরের দিকে এগিয়ে যায়।

সিত্তওয়িতে দুদিনের সফরে এক সভায় আনানের ভাষণ দেওয়ার ও স্থানীয় রোহিঙ্গা ও বৌদ্ধ রাখাইন সম্প্রদায়ের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হওয়ার কথা রয়েছে। কাইয়াও জিন ওয়াই নামের ৫২ বছর বয়সী এক প্রবীণ বলেন, এই কমিশনে আমি বিদেশিদের দেখতে চাই না। আমি এমন একটি কমিশন দেখতে চাই যার মধ্যে রাখাইন নাগরিক যুক্ত থাকবে। সু চির গঠন করা কমিশনের দুই রাখাইন সদস্য রাখাইন রাজ্যের জনগণের ‘প্রতিনিধিত্ব’ করে না বলে দাবি করেছেন তিনি।

রাখাইন রাজ্যের প্রভাবশালী দল আরাকান ন্যাশনাল পার্টির (এএনপি) কিছু নেতা এই প্রতিবাদের ডাক দিয়েছেন। তারা কমিশনের সমালোচনা করে বলেছেন, বিদেশিরা তাদের এলাকার ইতিহাস বুঝবে না। এএনপি-র নির্বাহি কমিটির সম্পাদক অং থান ওয়াই বলেন, এই দেশ সার্বভৌম, তাই আমরা আমাদের স্থানীয় বিষয়ে বিদেশিদের হস্তক্ষেপ মেনে নেবো না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য