আইএসের বিস্তার ঠেকানোর দাবি পাকিস্তানেরপাকিস্তানে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিস্তার প্রতিহত করার দাবি করেছে দেশটির সেনাবাহিনী।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, এ মন্তব্যের মধ্য দিয়ে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী দেশটিতে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএস এর উপস্থিতি স্বীকার করে নিল।

পাকিস্তান সেনাবাহিনীর শীর্ষ মুখপাত্র লেফ্টেনেন্ট জেনারেল অসিম বাজওয়া বলেন, “পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত আইএস সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে ৩০৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা গণমাধ্যম ও নিরাপত্তাবাহিনীর উপর হামলায় জড়িত।”

“তারা সরকার, কূটনীতিক ও বেসামরিক নাগরিকদের উপর হামলারও পরিকল্পনা করছিল।”

আটক ব্যক্তিদের মধ্যে ২৫ জন বিদেশি, যাদের মধ্যে আফগানিস্তান ও সিরিয়ার নাগরিকও রয়েছে।

বাকিরা পাকিস্তানে জঙ্গি দলের প্রতিষ্ঠার সঙ্গে জড়িত এবং পরে আইএস  এর প্রতি তাদের আনুগত্য স্বীকার করেছে বলেও জানান তিনি।

পাকিস্তানে আইএস প্রতিষ্ঠাকারী মূল দলের ২০ সদস্যের একজন ছাড়া বাকিদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়েছে বলেও জানান সেনাকর্মকর্তা বাজওয়া।

“যাকে আমরা গ্রেপ্তার করতে পারিনি, আমি নিশ্চিত সে এখন পাকিস্তানে নেই।”

পাকিস্তান সীমান্তবর্তী আফগান প্রদেশ নানগারহার, খস্ত ও কুনারে এখনও আইএস যোদ্ধারা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

আইএস এর আফগানিস্তান ও পাকিস্তান শাখার প্রধান হাফিজ সায়েদ খান গতমাসে আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় নিহত হন।

গত মাসের শুরুতে পাকিস্তানের কোয়েটায় একটি হাসপাতালে বোমা হামলায় ৭০ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়।

পাকিস্তানি তালেবন ছাড়াও আইএস ওই হামলার দায় স্বীকার করেছিল।

হামলার পর পাকিস্তানে আইএস-এর উত্থান নিয়ে আন্তর্জাতিক বিশ্ব শঙ্কায় পড়ে যায়।

কোয়েটায় ওই হামলার পেছনে আইএস জড়িত থাকার বিষয়টি উড়িয়ে দিয়েছেন বাজওয়া।

তিনি বলেন, “কোয়েটায় হামলার পেছনে দায়েশের (আইএস কে আরবিতে দায়েশ বলা হয়) জড়িত থাকার কোনও প্রমাণ আমরা পাইনি। আমার মনে হয় নিজেদের নাম প্রচারের জন্যই তারা দায় স্বীকার করেছিল।”

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য