বিরলে মন্দির ও সমাধি ভাংচুরের ঘটনায় বিক্ষোভ মিছিল ও মানব বন্ধনবিরল (দিনাজপুর) সংবাদাতাঃ  দিনাজপুরের বিরলে শ্বশ্মানের উপরে থাকা সমাধি, মন্দির ও মূর্ত্তি ভাংচুরের ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবীতে স্মারক লিপি প্রদান, মানব বন্ধন, বিক্ষোভ মিছিলসহ সমাবেশ করেছে একটি শ্বশ্মান উদ্ধার কমিটি।

বৃহস্পতিবার সকালে হামেরা দিনাজপুরিয়া সংগঠনের সহযোগীতায় বিরল পৌর শহরের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সংলগ্ন শ্বশ্মান উদ্ধার কমিটির আয়োজনে বিক্ষোভ সমাবেশের বিক্ষোভ কারীরা প্রথমে একটি মিছিল বের করে পৌর শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পরিষদের সামনে মানব বন্ধনে অংশ নেন। মানব বন্ধন শেষে তারা বিরল উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক বরাবরে ৫ দফা দাবী সম্বলিত একটি স্মারক লিপি প্রদান করেন।

ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার সহকারী কমিশনার (ভূমি) সৈয়দ হাসান মাহমুদ স্মারক লিপি গ্রহন করে উপস্থিত বিক্ষুদ্ধ জনতাকে আশ্বাস প্রদান করেন। পরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চত্বরে এক সমাবেশে শ্বশ্মান উদ্ধার কমিটির সভাপতি কুবা চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, হামেরা দিনাজপুরিয়া সংগঠনের সভাপতি এম, এ কুদ্দুস সরকার, সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন মানিক, বাংলাদেশ কৃষক ফেডারেশনের সহ-সম্পাদক কমরেড জাহাঙ্গীর আলম, গন মানুষের নেতা কমরেড আব্দুল মালেক, ইউনিয়ন আদিবাসি সংগঠনের সভাপতি হরীমহন ভুঞ্জার, সভানেত্রী বান্নি ভুঞ্জারী, হরিজন নেত্রী লাইলী বালা প্রমুখ।

দাখিলকৃত ৫ দফা দাবী সম্বলিত স্মারক লিপি থেকে জানা যায়, বিরল মৌজার ১ নং খতিয়ান ভুক্ত ৬১৯ নং দাগের ৪৮ শতাংশ সম্পত্তি যাহা সি,এস ও এস,এ রেকর্ডে হিন্দু সাধারণের জন্য শ্বশ্মান হিসাবে উল্লেখ আছে। উক্ত সম্পত্তি দীর্ঘ দিন পূর্ব হতে হিন্দু সাধারনেরা মৃত দেহ সমাধী দেয়ার পাশা পাশি ৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় অনেক মুক্তিযোদ্ধাকে সেখানে গনকবর দেয়া হয়।

এদিকে শ্বশ্মান কমিটি উক্ত সম্পত্তির এক পার্শ্বে শ্বশ্মানকালী মন্দির স্থাপন করে পুজাও করে আসছিল। সম্প্রতি ঐ এলাকার মৃত ঃ সামশুদ্দিনের পুত্র প্রতিপক্ষ মইন উদ্দীন ও তার লোকজন কথিত বন্দোবস্ত দলিল মুলে ঐ সম্পত্তি দাবী করে মন্দির, মূুর্ত্তি ও শ্বশ্মানের সমাধি ভাংচুর করে ক্ষতি সাধন ও ধর্মীয় অনুভুতিতে আঘাত হানে। সে কারনে শ্বশ্মান উদ্ধার কমিটি বিরল থানায় বার বার অভিযোগ দাখিল করলেও থানা পুলিশ জড়িত ব্যাক্তিদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন না করে নিরব ভুমকিা পালন করতে থাকে। ফলে শ্বশ্মান উদ্ধার কমিটি বিক্ষোভ কর্মসূচী ঘোষনা করে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য