খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না পপিকেঅনেকদিন ধরেই চিত্রনায়িকা পপিকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করে আসছিলেন এই সময়ের অনেক নির্মাতা। চলচ্চিত্র পাড়ায় পা রাখলেই পপিকে ফোনে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না এই কথাটা প্রায়ই শোনা যায়। তবে কোথাও হারিয়ে যান নি তিনি। পপি নিজেই জানালেন সেই কথা। সাম্প্রতিক সময়ে তেমন ভালো কাজের প্রস্তাব তার কাছে না আসার কারণেই তিনি অনেকটা অভিমান নিয়ে আড়ালে রয়েছেন। পপি বলেন, আমি চলচ্চিত্রের মানুষ। দীর্ঘদিন ধরে মাধ্যমটিতে কাজ করছি। এখন একটু এখান থেকে দূরে আছি। সময় হলেই আবার নিয়মিত কাজ করব। আমি কোথাও হারিয়ে যাইনি।

এই সময়ের প্রযোজক যারা চলচ্চিত্রে কাজ করার প্রস্তাব দিচ্ছেন তাদের বেশিরভাগকেই আমি চিনি না। অর্থাৎ পেশাদার প্রযোজক এখন নেই বললেই চলে। এমনকি আমার মনে প্রশ্ন জাগে, কারা এখন চলচ্চিত্রে প্রযোজনা করছেন। অবশ্যই সময়ের ধারায় অনেক কিছুর পরিবর্তন হবে। তবে সেই পরিবর্তনটা ভালো কিছুর জন্যই হওয়ার প্রত্যাশা করেন এই অভিনেত্রী। বড়পর্দায় অনেকদিন ধরে পপির উপস্থিতি নেই। অবশ্য শিগগিরই তার অভিনীত একটি ছবি সেন্সরে জমা পড়বে। ছবির নাম ‘সোনাবন্ধু’। ত্রিভুজ  প্রেমের গল্প নিয়ে মাহবুবা শাহরীনের ‘হতাই’ উপন্যাস অবলম্বনে এ ছবির কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে জানালেন তিনি।

এ ছবিতে তার সহশিল্পী হিসেবে কাজ করছেন ডিএ তায়েব ও পরীমনি। তপন বসাকের প্রযোজনা ও শুভ টেলিফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত ‘সোনাবন্ধু’ চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করছেন জাহাঙ্গীর আলম সুমন। ছবিটি নিয়ে পপি বলেন, এই ছবির কাজটা শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আর অল্প কিছু কাজ হলেই এটি সেন্সরে জমা পড়বে। এদিকে বড় পর্দার পাশাপাশি গত কয়েক বছর ধরে ছোট পর্দার নাটক-টেলিফিল্ম এবং বিজ্ঞাপনেও কাজ করছেন পপি। সবশেষ একটি বিস্কুট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে একটি বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে কাজ করেছেন। মুহাম্মাদ মোস্তফা কামাল রাজের পরিচালনায় নির্মিত এ বিজ্ঞাপনটি বর্তমানে বিভিন্ন টিভিতে প্রচার হচ্ছে। গত ঈদে ছোটপর্দার দর্শকের জন্য বিটিভির একটি অনুষ্ঠানে কাজ করেছিলেন পপি। অনুষ্ঠানের নাম ‘তারকাকথন’।

নিমা রহমানের উপস্থাপনায় এটি প্রযোজনা করেছেন শরৎ কুমার সরকার। পপি বলেন, এবারের ঈদেও বেশ কিছু কাজের জন্য কথা চলছে। চরিত্র ও গল্প অনুযায়ি ভালো কিছু কাজ করতে চাই। সস্তা কিছু করে দর্শকের মনে কষ্ট দিতে চাই না। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিতে যোগাযোগ করেও অনেক সময় অনেকে তাকে পান না। এ বিষয়ে জানতে চাইলে পপি বলেন, কাজ না থাকলে আসলে আমি ফোনে তেমন খেয়াল রাখি না। পরিচিত নাম্বার হলে পরে যোগাযোগ করার চেষ্টা করি। ভালো কাজের দেখা নেই। অনেকে শুধু ডিস্টার্ব করার জন্য ফোন দেন। কাজের বিষয়ে তেমন কোনো কথা বলেন না। তাই ইচ্ছে করেও অনেক সময় ফোন ধরি না। আমার ইচ্ছে করে না।

আমি ভালো কাজের অপেক্ষায় রয়েছি। দর্শকের সামনে সেভাবেই হাজির হতে চাই। পপি অভিনীত বেশ কিছু ছবি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এগুলো হলো ‘পৌষ মাসের পিরিতি’, ‘শর্টকাটে বড়লোক’, ‘লীলামন্থন’, ‘দুই ভাইয়ের যুদ্ধ’ ও ‘জীবন যন্ত্রণা’। এসব ছবি নিয়ে পপি বলেন, প্রতিটি ছবির কাজ শেষ। কোনো না কোনো কারণে ভালো এই ছবিগুলো অনেকদিন ধরেই মুক্তি পাচ্ছে না। আর্টিস্টের কাজ ঠিকমত চরিত্রের রূপায়ন করা বা যথাযথ অভিনয় করা। কেনো এই ছবিগুলো মুক্তি পাচ্ছে না এসব বিষয়ে পরিচালক বা প্রযোজকরা ভালো বলতে পারবেন। তবে আমি নিশ্চিত, এই ছবিগুলো দর্শকরা দেখলে অবশ্যই তাদের ভালো লাগবে। নতুন এক পপিকে আবিস্কার করবেন তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য