দক্ষিণ সুদানে নতুন আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী মোতায়েন হবেশান্তিচুক্তি রক্ষায় নতুন আন্তর্জাতিক রক্ষীবাহিনী মোতায়েনে সম্মত হয়েছে দক্ষিণ সুদান সরকার।

গত মাসে প্রেসিডেন্ট সালভা কির ও সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট রিয়েখ মাচারের নিজ নিজ নৃগোষ্ঠীগত দ্বন্দ্বে দেশটিতে অন্তত ৩০০ জন নিহত ও ফের গৃহযুদ্ধ লেগে যাওয়ার হুমকি তৈরি হয়েছিল। এর আগে গৃহযুদ্ধে দেশটির প্রায় লাখখানেক মানুষ নিহত হয়েছিল।

গৃহযুদ্ধ থামাতে ওই দুই নেতা একটি শান্তিচুক্তি করেছিলেন। ওই শান্তিচুক্তি রক্ষার্থেই নতুন বাহিনী মোতায়েনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, বর্তমানে দক্ষিণ সুদানে জাতিসংঘের ১২ হাজার রক্ষী মোতায়েন থাকলেও তারা আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারছে না।

দেশটিতে নতুন রক্ষীবাহিনী মোতায়েনের ঘোষণাটি দিয়েছে পূর্ব আফ্রিকীয় আঞ্চলিক সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল অথরিটি অন ডেভেলপমেন্ট (আইজিএডি) এবং দক্ষিণ সুদানের মন্ত্রীসভা বিষয়ক মন্ত্রী ড. মার্টিন ইলিয়া লোমুরো।

এর আগে দক্ষিণ সুদানের প্রেসিডেন্ট সালভা কির অতিরিক্ত বাহিনী মোতায়েনের প্রস্তাবটি খারিজ করে দিয়েছিলেন।

ইথিওপিয়ায় আইজিএডি-র এক বৈঠকে দক্ষিণ সুদানে আন্তর্জাতিক রক্ষীদের একটি নতুন ইউনিট মোতায়েনের বিষয়টি সমর্থন করেছে আফ্রিকান ইউনিয়ন (এইউ) ।

তবে এই বাহিনীটি সম্পর্কে বিস্তারিত অনেক তথ্যই জানা যায়নি।

নতুন বাহিনীকে বর্তমান শান্তিরক্ষী মিশন থেকে বেশি ক্ষমতা দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছে আইজিএডি-র সূত্রগুলো।

ইথিওপিয়ায় বৈঠক শেষ হওয়ার পর দক্ষিণ সুদানের মন্ত্রী লোমুরো বিবিসিকে বলেছেন, নতুন বাহিনীকে কী পরিমাণ ক্ষমতা দেওয়া হবে, তাদের সংখ্যা কতো হবে এবং তারা কতোদিন মোতায়েন থাকবে, এ বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলার জন্য আরো আলোচনা দরকার।

বিবিসির আফ্রিকা প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, কঙ্গো গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের এম২৩ বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সঙ্গে লড়াই করার জন্য আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের সেনাদের নিয়ে যে ধরনের ইউনিট গঠন করা হয়েছে সম্ভবত একই ছাঁচে নতুন রক্ষীবাহিনীটিও গঠন করা হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য