পীরগঞ্জে গণ সংযোগে রাত দিন একাকার ভোট উৎসবে মেতেছে ভোটাররারংপুরের নবগঠিত ৭ আগষ্ট রবিবার পীরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে প্রার্থীদের পথসভা, মিছিল মিটিং,গণসংযোগ ও নানান ধরনের প্রচার প্রচারণা শেষ পর্যায়ে। প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা উত্তাপে জমে উঠেছে নির্বাচনী মাঠ ভোটারদের মন জয় করতে প্রার্থীদের গণ সংযোগ পথ সভা উঠান বৈঠক চলছে পুরো দমে বসে নেই কোন প্রাথী পাড়ায় পাড়ায় ছোট বড় সড়কের দু ’ধারে, পাড়া মহল্ল¬¬ায় ছেয়ে গেছে প্রার্থীদের প্রতীক সম্বলিত ব্যানার, ফেষ্টুন ও পোষ্টারে পোষ্টারে। পৌর এলাকার চা-পানের দোকান গুলোতে চলছে প্রার্থী, কর্মি সমর্থক ও ভোটারদের বিরামহীন সরব আলোচনা। চলছে হিসেব নিকেশ সহ নিজেদের মনোনীত প্রার্থীদের গুনকীর্তন,চলছে তর্ক বিতর্ক। নির্বাচন কমিশনার কর্তৃক ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী গত ১২ জুলাই মনোনয়ন পত্র দাখিল, বাছাই ও ২৩ জুলাই প্রতীক বরাদ্দের পর বর্তমানে চলছে প্রচার প্রচারনা। নবগঠিত এ পৌরসভায় ১৩টি গ্রাম, ৯টি ওয়ার্ডের ১২ হাজার ৯‘শ ৩৭ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ৬ হাজার ৩’শ ১৭ এবং মহিলা ৬ হাজার ৬’শ ২০ জন আগামী ৭ আগষ্ট রোববার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে নির্বাচিত করবেন পীরগঞ্জ পৌরসভার প্রথম সৌভাগ্যবান মেয়র। ৯ টি ওয়ার্ডে ৯ জন প্রিজাইডিং অফিসার,সহারী প্রিজাইডিং ৩৮ ও ৭৬ জন পোলিং অফিসার ভোট গ্রহনের দায়িত্বে থাকবেন।

নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১০জন ও সাধারন কাউন্সিলর পদে ৪৭জন সহ মোট ৬১জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। মেয়র পদে যারা প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন তারা হলো- আ‘লীগ মনোনীত উপজেলা আ‘লীগের সাধারন সম্পাদক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাসুর পুত্র আবু ছালেহ্ মোঃ তাজিমুল ইসলাম শামীম (নৌকা), জাতীয়তাবাদী দল বি এন পি মনোনীত উপজেলা বি এন পির সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মন্ডল সেবু (ধানের শীষ), পীরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যন স্বতন্ত্র সায়দুর রহমান (নারিকের গাছ) ও পীরগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি স্বতন্ত্র এ্যাডঃ কাজী লুমুম্বা লুমু (জগ) প্রতীক। তবে নব গঠিত পৌরসভায় জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী দিতে না পাড়ায় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ ও হতাশা দেখা দিয়েছে। তারা অনেকেই দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছেন। মাঠ পর্যায়ে নেতা কর্মীরা বলেছেন জাতীয় পার্টিতে গণতন্ত্রের যোগ্য ব্যক্তিদের মূল্যায়ন না করায় দলের অবস্থা আর আগের মত নেই। অথচ রংপুরের জাতীয় পার্টির ঘাটি বলা হলেও সেখানে নব গঠিত পীরগঞ্জ পৌরসভায় মেয়র প্রার্থী দিতে পারল না দলটি। এদিকে সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৩টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে প্রার্থী হয়েছে ১০জন এরা হলো- ১নং ওয়ার্ডে (১,২,৩) আনজুয়ারা খাতুন (ভ্যানিটি ব্যাগ), এছমোত আরা (মৌমাছি), জেবুন নাহার খাতুন, লিমা (কাচি) ও রুজি বেগম (পুতুল), ২নং ওয়ার্ড (৪,৫,৬) লায়লা আন্তাহার বানু এমিলী (আঙ্গুর), ছালমা বেগম (কাচি), ফেরদৌসী বেগম (মৌমাছি) ও ফুলেরা নাসরীন (ভ্যানিটি ব্যাগ) ও ৩নং ওয়ার্ড (৭,৮,৯) শিউলী বেগম (আঙ্গুর) ও জেসমীন আখতার (কাচি)।

সাধারন কাউন্সিলর পদে ১ নং ওয়ার্ডে ৪জন, ২ নং ওয়ার্ডে ৪জন, ৩ নং ওয়ার্ডে ৪জন, ৪ নং ওয়ার্ডে ৫জন, ৫ নং ওয়ার্ডে ৫জন, ৬ নং ওয়ার্ডে ৮জন, ৭ নং ওয়ার্ডে ৬ জন, ৮ নং ওয়ার্ডে ৬ জন ও ৯ নং ওয়ার্ডে ৫ জন সহ ৪৭জন প্রার্থী রয়েছে।
এবারের নির্বাচনে আলোচিত দিক হচ্ছে মেয়র, সংরক্ষিত কাউন্সিলর ও সাধারন কাউন্সিলর পদে একই পরিবারের ৫ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এ ছাড়াও একই ওয়ার্ডে শ্যালক-দুলাভাই, ভাই এর বিরুদ্ধে বোন, চাচাত ভাই ও জেঠাত ভাই প্রার্থী হয়েছে ।

এক সময়ের পীরগঞ্জ জাপার দুর্গ হিসেবে পরিগনিত হলেও এখন আর সেই চিত্র নেই। গত এক দশকের কয়েকটি নির্বাচনে আ’লীগ সে চিত্র পুরোটাই পাল্টে দিয়েছে। পৌর এলাকা সরেজমিন ঘুরে বিভিন্ন পেশার সাধারন ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মেয়র,সংরক্ষিত ও সাধারন কাউন্সিলর প্রার্থীদের জয়ের ব্যাপারে সুনিশ্চিত ভাবে কিছুই বলা যাচ্ছে না বলা গেলেও মেয়র পদে আ‘লীগ প্রার্থী আবু ছালেহ্ মোঃ তাজিমুল ইসলাম শামীম এর সাথে ত্রী মুখী লড়াই হবে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান সায়দুর রহমান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এ্যাডঃ কাজী লুমুম্বা লুমুর সাথে। তবে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী শহিদুল ইসলাম সেবু গণ সংযোগ জোরে চালিয়ে যাচ্ছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য