পার্বতীপুরে অর্ধকোটি টাকার সরকারী জমিতে ইউএনও অফিসের এক কর্মচারীর বহুতল বাড়ীসোহেল সানী, পার্বতীপুর থেকেঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের এক কর্মচারীর বিরুদ্ধে ভূয়া মালিকানার কাগজপত্র তৈরী করে পার্বতীপুর শহরের পুরাতন বাজারে সরকারী জমিতে বহুতল ভবন নির্মান কাজ শুরুর অভিযোগ উঠেছে। এনিয়ে সংশি¬ষ্ট উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ চেয়ে গণস্বাক্ষর সম্বলিত অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, পার্বতীপুর পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের পার্বতীপুর মৌজার ১১৬৬ খতিয়ানভূক্ত ৩১১ দাগের (অংশ) প্রায় অর্ধ কোটি টাকা মূল্যের ৬ শতক সরকারী জমিতে (পরিত্যক্ত তালিকার) তৎকালীন থানা সার্কেল অফিসার (রাজস্ব) কার্যালয়ের পিয়ন মৃত মফিজ উদ্দীন অবাঙ্গালীদের ছেড়ে যাওয়া পাকাবাড়ীতে বসবাস শুরু করেন। পরে নিজ নামে ভূয়া দলিল প্রস্তুত করে ওই সম্পতির মালিকানা দাবী করেন। কিন্তু ভু-সম্পত্তিটি সরকারী গেজেটে পরিত্যক্ত সম্পত্তির অর্ন্তভূক্ত থাকায় পৌর তহশীলদার এর ভূমি রাজস্ব গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানান।

পরবর্তিতে মফিজ উদ্দীনের ছেলে আবদুস সালাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ের সার্টিফিকেট সহকারী পদে কর্মরত থাকায় উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে নিজ নামে জমিটির মালিকানা অর্জনের চেষ্টা চালাচ্ছেন। এছাড়াও পৌর কর্তৃপক্ষের কাছে জমির প্রকৃত মালিকানার বিষয়টি গোপন রেখে বহুতল ভবন নির্মান কাজের নকশা অনুমোদন ছাড়াই বাড়ী নির্মানের চালিয়ে যাচ্ছেন।

স্থানীয় লোকজন দাবী করেন, ওই জমির অবাঙ্গালী মালিক স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে দেশ ত্যাগ করেছেন। অথচ অন্যলোককে ভূয়া মালিক সাজিয়ে তারা জাল দলিল সম্পাদন করেছেন।

এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ের সার্টিফিকেট সহকারী আবদুস সালাম দাবী করেন, আমার মালিকানার স্বপক্ষে মেয়র, পার্বতীপুর পৌরসভা ও ফুলবাড়ী গণপূর্ত উপ-বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী প্রতিবেদন দিয়েছেন। ওই প্রতিবেদন দিনাজপুরের জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বাধীন জেলা পরিত্যক্ত সম্পত্তি (বাড়ী-ঘর) ব্যবস্থাপনা বোর্ডের ২০১৫ সালের ৬ মে’র সভায় উপস্থাপন করা হয়। যাচাই-বাছাই শেষে প্রতিবেদনটি বোর্ডের পরর্বতী সভায় উত্থাপনের জন্য সিদ্ধান্ত হয়। এব্যাপারে পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন বলে তিনি জানান।

পার্বতীপুর পৌরসভার মেয়র এজেডএম মেনহাজুল হক ইউএনও অফিসের কর্মচারী আবদুস সালামের সরকারী সম্পত্তিতে বহুতল ভবন নির্মান কাজের নকশা অনুমোদনের বিষয়টি তার জানা নেই বলে জানান।

এব্যাপারে পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সরকারী সম্পত্তিতে বহুতল ভবন নির্মানের অভিযোগ পাওয়ার পরপরই আবদুস সালামকে নির্মান কাজ বন্ধের নোটিশ প্রদান করি। তবে বর্তমানে তিনি কার নির্দেশে নির্মান কাজ অব্যাহত রেখেছেন তা আমার জানা নেই।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য