বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজকে সরকারিকরণ করায় এমপি গোপাল কে অভিনন্দননিজস্ব প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, বর্তমান সরকার শিক্ষাবান্ধব ও টেকসই উন্নয়নে বিশ্বাসী বলে দেশের সবক্ষেত্রে একের পর এক বিষ্ময়কর উন্নয়ন হচ্ছে। প্রত্যন্ত অঞ্চলের তরুণদের উন্নত শিক্ষায় শিক্ষিত করতে সরকার শিক্ষাকে বীরগঞ্জ-কাহারোলসহ সব এলাকার মানুষের দোরগড়ায় পৌছে দেয়ার কাজ করছে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ ও কাহারোলের জয়নন্দ ডিগ্রী কলেজকে সরকারী কলেজ হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে।

এটি বর্তমান সরকার তথা জাতির জনক কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার শিক্ষার প্রতি আন্তরিকতার পরিচয় বহন করে। তাঁর গতিশীল নেতৃত্বের কারনেই আজ বীরগঞ্জ-কাহারোলবাসী পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের প্রাক্কালে আরেকটি খুশীর বার্তা পেল। তাই এই এলাকার মানুষের পক্ষ থেকে আমি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। এতোসব উন্নয়নের পথে কিছু অপশক্তি বাধার সৃষ্টি করছে।

তারা সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদের মাধ্যমে এদেশকে অকার্যকর রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠার প্রানান্তকর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। ৭১’র পরাজিত শক্তি ও গণতান্ত্রিক সংগ্রামে জনপ্রত্যাখ্যাত শক্তি এক হয়ে এসব কর্মকান্ড করছে। সর্বশেষ গুলশানে জঙ্গী হামলা তারই ধারাবাহিক নৃশংসতা। এসব বর্বরতার বিরূদ্ধে তথা ওই অপশক্তির বিরূদ্ধে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে ছাত্র-শিক্ষক, কৃষক-শ্রমিকসহ সকল শ্রেণী-পেশার মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

গতকাল ৪ জুলাই সোমবার সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপালের মিশনরোডস্থ বাসভবনে তাকে বীরগঞ্জ সরকারী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ খয়রুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীবৃন্দ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে আসলে শিক্ষক-কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। বীরগঞ্জের সুখ্যাত বিদ্যাপীঠ ‘বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ’কে সরকারিকরণ করায় প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য হিসেবে তাকে এ শুভেচ্ছা জানানো হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন কলেজের শিক্ষক মোঃ আমিনুল ইসলাম মিঠু, জয়নাল আবেদীন, নজরুল ইসলাম খান বুলু, হাসানুল মাছুদ, জিয়াউর রহমান জিয়া, কামরুজ্জামান, লিমন দেবনাথ।

শিক্ষক সমাজের উদ্দেশ্যে এমপি গোপাল বলেন, সরকার শিক্ষকদের জন্য, তাদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা দিতে বদ্ধপরিকর। ইতোমধ্যে সরকার তাদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনেক সুবিধা প্রদান করেছেন। তাই শিক্ষকদের যথাযথ দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে। কোন অবস্থাতেই শিক্ষার্থীরা শিক্ষা গ্রহনের ক্ষেত্রে যাতে বাধাপ্রাপ্ত না হয়, সেদিকে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য