সৈয়দপুরে ক্রেতাদের পদভারে জমে উঠেছে কাপড় মার্কেটজাকির হোসেন, সৈয়দপুর থেকেঃ  নীলফামারীর বাঙালি-বিহারীর মিশ্র শহর সৈয়দপুরে ঈদ উৎসব পালনের তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে। ঈদ মানে নতুন কাপড়, নতুন পোশাক। নতুন পোশাক ছাড়া ঈদ উৎসব কল্পনা করা যায়না। তাই সবাই ছুটছেন শহরের কাপড় মার্কেট আর দর্জি বাড়িতে।

আগেভাগে কাপড় না কিনলে দর্জিবাড়ি অর্ডার নেবে না। তাই সকলেই ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন গজ কাপড় কিনতে। মার্কেটগুলো মহিলা ও তরুণীদের পদভারে সরগরম হয়ে উটেছে। ফ্যাশন সচেতন মহিলারা পছন্দের কাপড় কিনতে ঢু মারছেন এ মার্কেট ও মার্কেট। কাপড়ের ডিজাইনে নতুনত্ব আনতে দর্জিবাড়িতে ভিড় করছেন সমানতালে। দর্জিবাড়ির দোকানিরা অর্ডার নিতে ফুরসত পাচ্ছেন না।

কেনাকাটার প্রতিযোগিতায় মার্কেটগুলোতে বিরাজ করছে ঈদের আমেজ। ক্রেতাদের আগমন দেখে দোকানীরা আছেন খোশ মেজাজে। গার্মেন্টস পোশাকের কেনাকাটাও শুরু হয়েছে। শাড়ি, পাঞ্জাবী ও গার্মেন্টস পোশাকের বিক্রি চলছে ধুমছে। আর দোকানীরাও এখন বাহারী পোশাক কালেকশনে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

শহরের অত্যাধুনিক সৈয়দপুর প্লাজা মার্কেট, নিউ ক্লথ মার্কেট ও রেলওয়ে বাজার কাপড় মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাদের পদচারণায় এসব মার্কেটে নারী ক্রেতাদের সঙ্গে অভিভাবকদের দরদাম করে কেনাকাটা করছেন। এবার কাপড়ের দাম কিছুটা কম থাকায় ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ে খুশি। দোকানীদের আশা এবছর বিক্রিবাট্টাও ভালো হবে। চাকরীজীবীদের বোনাস হলে বাজারে ক্রেতাদের সমাগম হবে আশাতীত এমন আশা দোকানীদের।

মার্কেটের দর্জি দোকানীরা জানান, এখন মেয়েদের পোশাক তৈরির অর্ডারই বেশি পাওয়া যাচ্ছে। ভারতীয় বিভিন্ন সিরিয়ালের নামে পোশাক তৈরি করে নিচ্ছেন। ফলে কারিগররা সেলাই কাজে দিনেরাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। বেশ কয়েকজন দর্জি জানান, ১৫ রমজানের পর তারা আর অর্ডার নেবেন না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য