কলাম্বিয়ায় ২০ জনকে খুনের কথা স্বীকার খুনীরকলাম্বিয়ায় চলতি বছরের জানুয়ারিতে এক নারী নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় গ্রেপ্তার এক ব্যক্তি ওই নারীসহ আরো ১৯জনকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

বিবিসি বলছে, মারিয়া গ্লাডাস অ্যারঙ্গো নামের ৫১ বছর বয়সী এক নারী অ্যান্টিওকুইয়া রাজ্যের গুয়ার্নে শহরে কোনো একজনের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার পর নিখোঁজ হন।

জাইমে ইভান মার্টিনেজ বেটানকার্ট নামের ৪৪ বছর বয়সী এক ব্যক্তির ফার্মে ওই নারীর পায়ের শেষ ছাপ খুঁজে পেতে সক্ষম হয় পুলিশ।

এরপর পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মার্টিনেজ স্বীকার করেন তিনি অ্যারঙ্গোকে তো খুন করেছেনই পাশাপাশি নিজের স্ত্রী, দুই সন্তান এবং অন্ততপক্ষে আরও ১৬জনকে হত্যার কথা তিনি ফাঁস করেন।

ধারণা করা হয় ১০ বছর ধরে তিনি এই খুনগুলো করেছেন। কিন্তু কেন এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনাগুলো তিনি ঘটিয়েছেন এ বিষয়টি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

খুনের শিকার হওয়া অধিকাংশই সম্ভবত নারী।

পুলিশ জানিয়েছে, তারা যখন মার্টিনেজের ফার্মে প্রবেশ করেন তখন দেখতে পান অ্যারঙ্গোর গহনাগুলো সুন্দরভাবে একটি প্লাস্টিকের বক্সে করে সাজিয়ে রাখা হয়েছে।

ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা ফার্মের মাঝে মাটিতে পুঁতে রাখা মানুষের দেহাবশেষ পরীক্ষা করে দেখছেন।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে প্রথমে অ্যারঙ্গোর নিখোঁজ হওয়ার সঙ্গে তার কোনো সংযোগ থাকার বিষয় প্রত্যাখ্যান করলেও পরবর্তী সময়ে তিনি তার নিজের পরিবারকে গেল নভেম্বরে শ্বাসরোধে হত্যার কথাও স্বীকার করেন।

প্রতিবেশিরা বলছেন, মার্টিনেজ সাড়ে তিনবছর আগে মেডেলিন শহরের পূর্ব দিকে গুয়ার্নেতে চলে যান।

বেশ কয়েকমাস ধরে মার্টিনেজের স্ত্রী ও তার সাত বছর বয়সী মেয়ে ও পাঁচবছর বয়সী ছেলে সন্তানকে দেখতে না পাওয়ায় প্রতিবেশিদের মধ্যে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছিল।

গেল বছর কলাম্বিয়ার রাজধানী বোগাটার একজন গৃহহীন ব্যক্তি বিভিন্ন সময়ে অন্ততপক্ষে ১১ জন নারীকে খুন করার কথা স্বীকার করার ঘটনায় দেশটির জনগণ হতবাক হয়ে পড়েছিল।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য