Rajjak-01আব্দুর রাজ্জাকঃ নিম্নমানের মালামাল ব্যবহার করায় ঠিকাদারকে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে দিনাজপুর পৌর মেয়র। আদেশ সুত্রে জানা গেছে, দিনাজপুর পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত স্বারক নং-দিনাজ/পৌর/২০১৪/৪১৮, তারিখ-১১/০৩/১৪ইং এ শহরের রামনগর থেকে পাটুয়াপাড়া পর্যন্ত আরসিসি ড্রেনের নির্মান কাজ বন্ধ রেখে নিম্নমানের মালামাল (ইট ও খোয়া) অপসারণ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্দেশনামায় উক্ত কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত ঠিকাদারকে জানানো হয়ছে যে, সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর, নির্বাহী প্রকেীশলী, সহকারী প্রকৌশলী এবং উপ-সহকারী প্রকৌশলীসহ সাইট পরিদর্শন করলে সংশ্লিষ্ট কাজের ইট ও খোয়া নিম্নমানের থাকায় কাজটি বন্ধ রাখতে বলা হয়।

সেই সাথে উক্ত মালামাল অপসারণ করে সাইটে নতুন ইট ভেঙ্গে কাজ করার জন্য ঠিকাদারকে বলা হয়। কিন্তু চিঠি পাওয়ার পরও ঠিকাদার কর্তৃপক্ষের অনুপস্থিতিতে মালামালগুলির গুণগতমান যাচাই না করে কাজ শুরু করেছেন বলে মেয়র চিঠিতে উল্লেখ করেছেন। ঠিকাদারকে পত্র প্রাপ্তির সাথে সাথে সাইটে নির্দেশনা মোতাবেক কাজ বন্ধ রেখে মালামালের গুণগতমান যাচাই করে কর্তৃপক্ষের উপস্থিতিতে কাজ শুরু করার জন্য বলা হয়েছে। অন্যথায় দরপত্রের শর্তানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে মেয়র চিঠিতে উল্লেখ করেছেন।

উল্লেখ্য, চিঠিতে মেয়র ব্যবস্থা গ্রহনের কথা বললেও বাস্তবে ছিল তার উল্টো। গতকাল ১৭ মার্চ সোমবার বিকেলে উক্ত এলাকার কাউন্সিলর মোস্তফা কামাল মুক্তিবাবু ও মহিলা কাউন্সিলর রোকেয়া বেগম লাইজু প্রতিবেদকের নিকট অভিযোগ করলে ঘটনাস্থলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সাইটে মেয়রের নির্দেশনা অমান্য করে নিম্নমানের ইট ও খোয়া দিয়েই কাজ চালু রেখেছে ঠিকাদার। এই সময় পৌর কর্তৃপক্ষের নিযুক্ত উপ-সহকারী প্রকৌশলী সজল বাবু মন্ডল ও ওয়ার্ক পারমিটার আব্দুস সাত্তার উপস্থিত থাকলেও কি কারণে যেন মুখ বন্ধ রেখে কাজ বন্ধ করছেনা তারা।

এ ব্যাপারে কাউন্সিলর মুক্তিবাবু ও লাইজু জানান, আমরা বারবার চেষ্টা করেও নিম্নমানের ইট ও খোয়া ব্যবহৃত কাজ বন্ধ করতে পারছিনা। আমাদেরকে জনগণ দায়িত্ব দিয়েছে ভালো মানের কাজ উপহার দেয়ার জন্য কিন্তু পৌরসভার কিছু অসাধু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও ঠিকাদারদের দাপটে তা সম্ভব হচ্ছে না।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য