ব্রয়লার মুরগী ও ডিমঘোড়াঘাট (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর ঘোড়াঘাটে ব্রয়লার মুরগী ও ডিমের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। সংকটের কারণে হাট-বাজারগুলোতে ব্রয়লার মুরগী ও ডিমের মুল্য অধিকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলার অধিকাংশ হাট-বাজারে ব্রয়লার মুরগির দোকানগুলোতে আগের তুলনায় মুরগির আমদানি অনেকাংশে কমে যাওয়ায় মুরগি ও ডিমের মুল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রচন্ড গরম, মুরগির খাদ্য ও ওষুধের মুল্য বৃদ্ধির কারণে মুরগি ও ডিমের আমদানি কমে যাওয়ায় মুল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে ব্যবসায়িরা জানান।

গত ১-২ মাস আগেও হাট বাজারের ব্রয়লার মুরগির দোকানগুলোতে যথেষ্ট ব্রয়লার মুরগি ও ডিমের আমদানি লক্ষ্য করা গেছো। ফলে মুরগি ও ডিমের দামও কম ছিল। বর্তমানে পোল্ট্রি খামারে আমদানি অর্ধেকে কমে যাওয়ায় মুরগি ও ডিম চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। কেজি ব্রয়লার মুরগির দাম ছিল ১০০ থেকে ১১০ টাকা ।

উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে ঘুড়ে দেখা গেছে বর্তমানে প্রতি কেজি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৭০-১৮০ টাকায়। ১ হালি ডিমের দাম ছিল ২৩-২৫ টাকা তা বেড়ে পর্যায়ক্রমে ৩৫-৪০ টাকায় দাড়িয়েছে। ফলে নিম্ন আয়ের মানুষের মুরগি ও ডিম ক্রয় ক্ষমাতার বাইরে চলে গেছে। অন্যদিকে দেশী মুরগি ও ডিম যেন সোনার হরিণে পরিণত হয়েছে। গ্রামাঞ্চলে বাসা বাড়িতে দেশী মুরগি ও ডিম উৎপাদন একেবারেই কমে গেছে। দেশী মুরগি ও ডিম উৎপাদন না হওয়ায় বাজারে দেখা মিলছে না।

বাজারে পাওয়া গেলেও মুল্য আকাশ ছোঁয়া। এটিও ক্রেতা সাধারণের ক্রয় ক্ষমতার নাগালের বাইরে। এক কথায় সাধারণ মানুষ দেশী মুরগি ও ডিমের স্বাদ ভুলেই গেছে। বর্তমানে প্রতি কেজি দেশী মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৩০০-৩৫০ টাকায় ও ডিমের হালি বিক্রি হচ্ছে ৪৫-৫০ টাকায়। ব্রয়লার মুরগির ব্যবসায়ীরা জানান, ব্রয়লার মুরগির বাচ্চার মুল্য বৃদ্ধি, খাদ্য ও ওষুধের মুল্য বৃদ্ধি এবং তীব্র গরমের কারণে মৃত্যুর হার বেশি হওয়ায় পোল্ট্রি খামারে উৎপাদন কমে গেছে। এ কারণে খামারীদের কাছ থেকে চড়া দামে মুরগি ও ডিম কিনতে হচ্ছে। ফলে আমাদেরকে চড়া দামে করতে হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য