বিরলে বাল্য বিবাহের দায়ে কনের মা ও কাজীকে ১ মাসের কারাদন্ড প্রদানবিরল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ সোমবার বিরলে বাল্য বিবাহের দায়ে ১০ নং রাণীপুকুর ইউপি’র বিবাহ রেজিষ্টার (কাজ্বী) শামীম রেজা, নাবালিকা কন্যার মা মরিয়ম বেগম এর ১ মাসের কারাদন্ডাদেশ দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত এর বিজ্ঞ বিচারক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল খায়রুম। বর রেজাউলকে না পাওয়ায় বরের পিতা আজগার আলীকে থানা হাজতে আটক রাখার নির্দেশ দিয়েছে বিজ্ঞ বিচারক।

জানা গেছে, উপজেলার রাণীপুকুর ইউপি’র রঘুদেবপুর (কাঁঠালডাঙ্গী) গ্রামের মৃত মোজাফ্ফর এর ৭ম শ্রেণী পড়ুয়া কন্যা আরমিনা আকতার এর সাথে রাণীপুকুর গ্রামের ভ্যানচালক আজগার আলীর ১ সন্তানের জনক পুত্র রেজাউল ইসলাম (৪০) এর কোর্ট এফিডেভিট এর মাধ্যমে ও পরে কাজীর মাধ্যমে গত শুক্রবার বাল্য বিবাহ হয়। রেজাউল ইসলাম এর স্ত্রী কয়েক মাস পূর্বে অন্যত্র সম্পর্ক করে পালিয়ে বিবাহ করায় বর্তমানে বহবলদিঘী (টিনপাড়া) নিবাসী রেজাউল একই এলাকার ঘটক মতিউর রহমানের মাধ্যমে আরমিনার সাথে দ্বিতীয় বিবাহের আয়োজন করে।

সংবাদ পেয়ে বিরল থানর এস আই নুরুজ্জমান ও এ এস আই আব্দুর রহমান উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সঙ্গীয় ফোর্সসহ নাবালিকা কন্যা আরমিনা আকতার, মা মরিয়ম বেগম, বরের পিতা ভ্যানচালক আজগার আলী, রাণীপুকুর ইউনিয়নের বিবাহ রেজিষ্টার কাজ্বী শামীম রেজাকে আটক করে রোববার সন্ধ্যায় আটক করে বিরল থানায় নিয়ে আসে।

বর রেজাউল ইসলাম (৪০) পুলিশের উপস্তিতি টের পেয়ে আত্মগোপনে রয়েছে। সোমবার সকালে থানা পুলিশ তাদেরকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল খায়রুম এর নিকট হাজির করলে আদালত নাবালিকা কন্যার মা মরিয়ম বেগম ও কাজী শামীম রেজাকে ১ মাসের কারাদন্ডাদেশ প্রদান করে। নাবালিকা কন্যাকে নিরাপদ হেফাজতে রাখার ও বরের পিতাকে বর বেজাউলকে না পাওয়া পর্যন্ত থানা হাজতে আটক রাখার নির্দেশ প্রদান করে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য